সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : ২১ জেলায় পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন নৌপরিবহনমন্ত্রী শাহাজান খান। তিনি বলেন, পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের ১২ দফা দাবি নিয়ে আলোচনা ফলপ্রসূ হয়েছে। আলোচনাসাপেক্ষে ধর্মঘট প্রত্যাহারে একমত হয়েছেন শ্রমিক নেতারা।

মঙ্গলবার বিকালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে এক বৈঠক শেষে নৌমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

মন্ত্রীর ঘোষণার পর দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল পণ্য পরিবহন মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক আব্দুল গাফফার বিশ্বাস ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন।

পণ্যবাহী যানবাহনের বাম্পার অপসারণের সিদ্ধান্ত বাতিলসহ ১২ দফা দাবিতে সোমবার থেকে দক্ষিণ-পশ্চিমের ২১ জেলায় পণ্য পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দেয় মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ। ধর্মঘটের কারণে ট্রাক, ট্যাঙ্ক লরি, কাভার্ড ভ্যান, পিকআপসহ পণ্যবাহী ও সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে।

নৌমন্ত্রী বলেন, ‘পণ্যবাহী ট্রাক-লরি ঠিকভাবে না চলতে পারলে মানুষ ভোগান্তির শিকার হয়। ব্যবসায়ীরা ক্ষতির সম্মুখীন হয়। একারণে সবার বিষয়টি চিন্তায় রেখেই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’

নৌমন্ত্রী জানান, ১২ দফার মধ্যে ট্রাকের সামনে অতিরিক্ত বামপার খুলে ফেলা হবে। আর মূলটা থাকবে। এটা নষ্ট হলে অবিকল লাগিয়ে দেয়া হবে। মডেলটা বিআরটিএ ঠিক করে দেবে।  আর অতিরিক্ত ওজনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে- নির্ধারিত মাপের চেয়ে বেশি পণ্য পরিবহন করা যাবে না। আর মাপের যন্ত্র মনিটরিং এবং সেটি ঠিক আছে কি না সেটি দেখার জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয় ও শ্রমিক সংগঠনের নেতাদের সমন্বয়ে কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে সাত দিনের মধ্যে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে। এই রিপোর্ট অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মন্ত্রী বলেন, ‘শ্রমিকদের বিশ্রামের জন্য মহাসড়কগুলোকে টার্মিনাল নির্মাণ করা হবে। ফিটনেস ও ড্রাইভিং লাইসেন্সসহ এ সংক্রান্ত সমস্যা বিআরটিএ দেখবে। সংস্থাটির চেয়ারম্যানকে এ বিষয়ে বলা হয়েছে। শ্রমিকনেতারা তার সঙ্গে বৈঠক করবেন।’


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম