সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : নতুন নির্বাচন কমিশনে (ইসি) সদস্যদের বাছাইয়ের জন‌্য ছয় সদস‌্যের সার্চ কমিটি গঠন করছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। আপিল বিভাগের একজন বিচারপতি নেতৃত্বে এ কমিটি গঠন করা হবে বলে জানা গেছে। এছাড়াও কমিটিতে হাইকোর্টের এক বিচারপতি থাকবেন বলে জানা গেছে। তবে তাদের নাম তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। খবর বিবিসি বাংলার।

কমিটির অন্য চারজন সদস্য হিসেবে যাদের শোনা যাচ্ছে তাঁরা হলেন, সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ সাদিক, মহা হিসাব নিরীক্ষক মাসুদ আহমেদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজির অধ্যাপক সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য শিরিন আখতার।

বুধবার তাদের তালিকা সম্বলিত একটি চিঠি রাষ্ট্রপতির কার্যালয় থেকে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হয়েছে। সেখান থেকে এটি গেছে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে।

প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন পেলেই মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ প্রজ্ঞাপন জারি করবে।

এদিকে বুধবার দুপুরে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম জানিয়েছেন, নতুন নির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠনে রাষ্ট্রপতির কাছে সুপারিশ করতে সার্চ কমিটির প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার কাছে পাঠানো হয়েছে।

তবে সার্চ কমিটি কত সদস্যবিশিষ্ট হবে আদেশ জারির আগে সে তথ্য জানাতে অপারগতা প্রকাশ করে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘সার্চ কমিটি গঠনে রাষ্ট্রপতির প্রস্তাব আমরা পেয়েছি। এটি এখন অনুমোদনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হয়েছে। এখনো ফেরত পাইনি।’

এ সার্চ কমিটি প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনার নিয়োগের মাধ্যমে নির্বাচন কমিশন গঠনে রাষ্ট্রপতির কাছে সুপারিশ করবে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের একজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করে জানিয়েছেন, সার্চ কমিটি গঠনে রাষ্ট্রপতির কার্যালয় থেকে ৬ সদস্যের নাম পাঠানো হয়েছে। বুধবার অথবা বৃহস্পতিবার সার্চ কমিটি গঠন করে আদেশ জারি করা হবে বলেও জানান তিনি।

যদিও বর্তমান কমিশন গঠনে সার্চ কমিটির সদস্য সংখ্যা ছিল ৪ জন। নির্বাচন কমিশন গঠনে দ্বিতীয়বারের মতো সার্চ কমিটি গঠন করা হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনের পর মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে সার্চ কমিটি গঠন করে আদেশ জারি করা হবে।

একজন কমিশনার (মো. শাহ নেওয়াজের মেয়াদ শেষ হবে ১৪ ফেব্রুয়ারি) বাদে বর্তমান প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ও অন্য তিন নির্বাচন কমিশনারের মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি।

নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনের জন্য সার্চ কমিটি করতে গত ১৮ ডিসেম্বর থেকে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপ শুরু করেন রাষ্ট্রপতি। সংলাপ শেষ হয় ১৮ জানুয়ারি। এ সময়ে রাষ্ট্রপতি আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টিসহ ৩১টি দলের সঙ্গে সংলাপ করেন।

প্রায় প্রতিটি দলই নির্বাচন কমিশন গঠনে আইন প্রণয়নের প্রস্তাব দেয়। তবে আইন না হওয়া পর্যন্ত সার্চ কমিটি গঠনের মাধ্যমে নতুন কমিশন গঠনের প্রস্তাবও দেয় দলগুলো।

বর্তমান নির্বাচন কমিশন গঠনে ২০১২ সালের ২২ জানুয়ারি চার সদস্যবিশিষ্ট সার্চ কমিটি গঠন করা হয়। আপিল বিভাগের বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে ওই কমিটিতে সদস্য হিসেবে ছিলেন হাইকোর্ট বিভাগের একজন বিচারপতি, বাংলাদেশের মহা-হিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক এবং সরকারি কর্মকমিশনের চেয়ারম্যান।

তখন কমিটি ১০ কার্মদিবসের মধ্যে রাষ্ট্রপতির কাছে সুপারিশ পেশ করে।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম