সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : যুক্তরাষ্ট্রের ট্রান্স প্যাসিফিক পার্টনারশিপ (টিপিপি) চুক্তি বাতিল করায় বাংলাদেশের জন্য ভাল হবে বলে মনে করছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের নতুন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের টিপিপি ছাড়ার সিদ্ধান্ত আমাদের জন্য ভালো হবে। তাতে আমাদের লাভই হবে।’

বুধবার সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে নিজের ৮৪তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে মতবিনিময়ের সময় এসব কথা বলেন অর্থমন্ত্রী। জীবনের ৮৩টি বসন্ত পার করা আবুল মুহিতের জন্মদিনে সকাল থেকেই শুভেচ্ছা ও ভালোবাসায় সিক্ত করান সহযোদ্ধা, পরিবারের সদস্য, সচিবালয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

দুপুরের দিকে সচিবালয়ে অফিসে আসলে অর্থমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানান অর্থসচিব, বাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান সচিব, বিডা, আইসিবিসহ তার মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

এ সময় আব্দুল মুহিত বলেন, ‘আজকে আমার ৮৩ বছর পূর্ণ হলো। এখনো আমি ফুলটাইম কাজ করছি। এটি আসলে ভাগ্যের ব্যাপার।’ এর জন্য পরম করুণাময় আল্লাহর কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তিনি।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আগামী দিনের স্বপ্ন আমার খুব ভালো। আগামী দিনের বাংলাদেশ ব্রাইট। বাংলাদেশ ভালো ভবিষ্যতের দিকে যাচ্ছে। আমাদের দেশের মানুষ অনেক ভালো, তারা অন্যের চিন্তা করে।’

নিজের জন্মদিন উপলক্ষে বিকালে নিজের লেখা ‘স্মৃতিময় কর্মজীবন’ নামের একটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করবেন আবুল মুহিত। বিকাল পাঁচটায় ঢাকার অফিসার্স ক্লাবে মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে বইটির প্রকাশক প্রতিষ্ঠান ‘চন্দ্রাবতি একাডেমি’।

১৯৩৪ সালে সিলেটের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন আবুল মাল আব্দুল মুহিত। তৎকালীন সিলেট জেলা মুসলিম লীগের নেতা আবু আহমদ আব্দুল হাফিজের দ্বিতীয় ছেলে মুহিত। তার মা সৈয়দ শাহার বানু চৌধুরীও রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন।

১৯৫৫ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে মাস্টার্স করার পর অক্সফোর্ড ও হার্ভার্ডে উচ্চ শিক্ষা নেন মুহিত। ১৯৫৬ সালে পাকিস্তান সিভিল সার্ভিসে যোগ দেওয়ার পর তখনকার পাকিস্তান এবং পরে স্বাধীন বাংলাদেশে সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে তিনি দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় মুহিত ওয়াশিংটন দূতাবাসে কূটনৈতিক দায়িত্বে পালন করেন। জুন মাসে পাকিস্তানের পক্ষ ত্যাগ করে বাংলাদেশের প্রতি আনুগত্য প্রদর্শন করেন তিনি।

১৯৮২-৮৩ সালে তখনকার এইচ এম এরশাদ সরকারের সময়ে প্রথমবারের মতো অর্থ ও পরিকল্পনামন্ত্রীর দায়িত্বে আসেন মুহিত। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে তিনি পান অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব।

২০১৪ সাল আওয়ামী লীগ টানা দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় এলে অর্থ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব মুহিতের কাঁধেই রাখেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম