সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক, লক্ষ্মীপুর : লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে স্বামীকে গলা কেটে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

স্বামী আবু তাহেরকে (৫৫) গলা কেটে হত্যা করে সেপটিক ট্যাংকে গুম করেন স্ত্রী। তিন দিন পর খবর পেয়ে জেলা পুলিশ সুপার ঘটনাস্থলে গিয়ে শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি) রাত ১১টার দিকে রায়পুর উপজেলার দক্ষিণ চরপাতা গ্রামের রেহান উদ্দিন জমাদার বাড়ির একটি ঘরের পাশের সেপটিক ট্যাংক থেকে লাশ উদ্ধার করে।

এর আগে গত বুধবার (২৫ জানুয়ারি) স্ত্রী তার সহযোগীদের নিয়ে স্বামীকে গলা কেটে হত্যা করে। এ ঘটনায় ঘাতক স্ত্রী রাবেয়া খাতুনকে (৩৫) আটক করে পুলিশ।

এর আগে শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি) সকালে নিহতের বড় ভাই থানায় নিখোঁজের জিডি (সাধারণ ডায়েরি) করলে পুলিশের তদন্তে ধরা পড়ে ঘটনার সঙ্গে স্ত্রী জড়িত। পরে স্ত্রীকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে বেরিয়ে আসে হত্যার রহস্য। উদ্ধার হয় মৃতদেহ। তবে তদন্ত ও গ্রেফতারের স্বার্থে হত্যায় জড়িত অন্যদের নাম প্রকাশ করেনি পুলিশ।

নিহত আবু তাহের রায়পুর উপজেলার দক্ষিণ চরপাতা গ্রামের মৃত নুরুল হকের ছেলে। ১৬-১৭ বছর আগে রাবেয়া খাতুনের সঙ্গে আবু তাহেরের বিয়ে হয়ে। তাদের সংসারে দুটি মেয়ে ও একটি ছেলে রয়েছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, স্ত্রীর পরকীয়ার জের ধরে দীর্ঘদিন থেকে তাদের মধ্যে পারিবারিক কলহ চলছিল। এ নিয়ে একাধিকবার সালিশ বৈঠকও হয়েছে।

নিহতের বড় ভাই নুরুল ইসলাম জানান, তিন দিন আগে বুধবার (২৫ জানুয়ারি) থেকে তার ভাই নিখোঁজ। আত্মীয়-স্বজনসহ সম্ভাব্য সব স্থানে খোঁজ নিলেও সন্ধান মেলেনি। যে কারণে শুক্রবার সকালে রায়পুর থানায় একটি জিডি করি। জিডি করার পর পুলিশ তদন্তে যায়। প্রাথমিক তদন্তে সন্দেহ হলে স্ত্রীকে আটক করে জিজ্ঞাসা করা হয়। এতে সহযোগীদের নিয়ে স্বামীকে জবাই করে হত্যা করার দায় স্বীকার করে সে। পরে তার তথ্যমতে, সেপটিক ট্যাংক থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

লক্ষ্মীপুরে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. শরিফুল ইসলাম বলেন, মৃতদেহ উদ্ধার করে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। স্ত্রীকে আটক করা হয়েছে। হত্যায় জড়িত অন্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম