সংবাদ শিরোনাম

 

শফিউর রহমান সেলিম, ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম : নিজের জীবনের তোয়াক্কা না করে দুটি প্রাণ বাঁচিয়েছেন রেল কর্মচারী বাদল মিয়া। অচেনা দুই জন মানুষকে বাঁচিয়ে বাঁচতে পারেননি তিনি নিজে। বাদল প্রাণ হারিয়েছেন, আর অথৈ সাগরে পড়েছে তার পরিবার।

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে বাদলের পরিবারের পাশে দাঁড়ালেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ফাহমি গোলন্দাজ বাবেল। তিনি পরিবারটিকে ৫০ হাজার টাকা অনুদান দিয়েছেন। রবিবার বেলা ১১টায় উপজেলার বেগম রাবেয়া মেমোরিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে সংসদ সদস্যের পক্ষ থেকে তার একান্ত সচিব মাসুদ হোসেন সোহেল বাদল মিয়ার স্ত্রীর হাতে অনুদানের টাকা তুলে দেন।

গত শুক্রবার রাজধানীর কুড়িল বিশ্বরোড এলাকায় মর্মান্তিক মৃত্যু হয় বাদলের। বেলা একটার দিকে রেললাইন মেরামতের কাজ করছিলেন বাদল। এ সময় সিলেটের দিকে যাচ্ছিল ট্রেন সুরমা এক্সপ্রেস। একই সময় এক নারী তার পাঁচ বছরের ছেলেকে নিয়ে রেল লাইন পার হচ্ছিলেন। ট্রেন আসছে, সেটা দেখতে পাননি তারা। কিন্তু দেখেছিলেন বাদল। সিদ্ধান্ত নেন তিনি বাঁচাবেন দুই জনকে। দৌঁড়ে গিয়ে ধাক্কা দিয়ে ওই নারীকে তার সন্তানসমেত নিরাপদ দূরত্বে সরিয়ে দিতে সক্ষম হন বাদল। কিন্তু বাঁচতে পারেননি তিনি নিজে। তাকে খ- বিখ- করে ট্রেনটি চলে যায়। ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান বাদল।

রেল কর্মী বাদলের এই আত্মত্যাগ ছুঁয়ে গেছে ঘটনাটি জেনেছেন এমন সবাইকে। রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক কথা দিয়েছেন, পরিবারটির পাশে থাকবেন তিনি।

বাদলের স্ত্রী মা আয়েশা খাতুন একজন গৃহিনী। বড় ছেলে জজ মিয়া একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের নিরাপত্তাকর্মী। মেজো ছেলে মামুন মিয়া খিলক্ষেত এলাকায় রেলগেটের লাইনম্যান। দুই ছেলে সোহাগও সোহেল বেকার। আর সবার ছোট রিমেল মিয়া কাওলা স্কুলে চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ে।

রেলপথ মন্ত্রী মুজিবুল হক বাদলের পরিবারের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন। পরিবারটিকে আর্থিক সহায়তা দেয়ার পাশাপাশি পরিবারের কোনো সদস্য চাকরি পাবার যোগ্য হলে যোগ্যতা অনুযায়ী তার চাকরির ব্যবস্থা করার আশ্বাসও দিয়েছেন তিনি।

বাদলের গ্রামের বাড়ি গফরগাঁওয়ের মশাখালী ইউনিয়নের মুখী গ্রামের সোনাতলা পাড়ায়। ওই এলাকার মানুষের মুখে মুখে এখন তার প্রশংসা। নিজের জীবন দিয়ে অন্যের জীবন বাঁচানো বাদলের জন্য গর্বের সীমা নেই তাদের।

বাদলের এই পরিণতির কথা শুনে দুঃখ পেয়েছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ফাহমি গোলন্দাজ বাবেল। পরিবারটি গ্রামের বাড়িতে আসার খবর শুনে তিনি পাঠান তার একান্ত সচিবকে। আর তিনি সহায়তা তুলে দেন বাদলের স্ত্রীর হাতে।
এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন লংগাইর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল আমিন বিপ্লব, উপজেলা স্বেচ্ছা সেবকলীগ আহবায়ক আওরঙ্গ হেলালসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও সকল সহযোগী সংগঠনের নেতারা।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম