সংবাদ শিরোনাম

 

ঈশ্বরগঞ্জ প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম : ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে ইটভাটার কাজের জন্যে আঞ্চলিক সড়ক বন্ধ করে ও কাঠ পুড়িয়ে এলাকার পরিবেশ নষ্টের অবিযোগ উঠেছে। ইটভাটার কাজ সড়ক জুড়ে করায় যান চালাচলে ও পায়ে হেঁটে মানুষের চলাচলে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। ওই অবস্থা নিরসনের দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় এলাকাবাসী।
জানাযায়, ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা সদর থেকে দেওয়ানগঞ্জ এলজিইডি সড়কের জয়পুর এলাকায় বিএ-বি ব্রিকস নামে ঈশ্বরগঞ্জ ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম ভুঁইয়ার একটি ইটভাটা রয়েছে। সড়কের পাশে ইটভাটাটি হওয়ায় সড়কের দুই পাশেই চলে ভাটার কার্যক্রম। একপাশে ইট বানানো আর অন্যপাশে হয় পুড়ানো কাজ। সড়ককে ঘিরে ভাটার কর্মযজ্ঞ চলায় সড়কটিতে ধুলার পলি পড়েছে। এই সড়ক দিয়ে প্রতিনিয়ত যানবাহন চলাচল করায় সৃষ্টি হয় ধুলার। রাস্তা দিয়ে গাড়ি চলাচল করলে আশপাশ ধুলায় অন্ধকার হয়ে যায়। এছাড়া ইট ভাটায় কাঠ পুড়ানো হয় নিয়মিত ফলে ঘটছে পরিবেশের বিপর্যয়। সড়কের পাশেই কয়লা ভাঙার কাজ করা হয় এর ফলে ধুঁয়ায় আচ্ছন্ন হয়ে পড়ে গোটা পরিবেশ। ধুঁয়া আর ধুলায় আশপাশের সবুজ গাছ সবুজ বর্ণ হারিয়েছে।
সড়ক দিয়ে মানুষের পায়ে হেঁটে চলাচল করা কঠিন হয়ে পড়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দা মামুনুর রশিদ। তিনি বলেন, ইটভাটার কাজ সড়কে করায় ধুলার যন্ত্রণায় চলাচল করা যায় না। সড়কটি দেখলে বুঝার উপায় নেই এটি সড়ক না ইটভাটা। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা চলাচল করে ওই সড়ক দিয়ে। ভাটার মাটিতে ধুলায় শিক্ষার্থীদের পড়তে হয় চরম দুর্ভোগে। এতে প্রায়ই শিক্ষার্থীরা অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাই ওই অবস্থা থেকে পরিত্রাণ চেয়েছেন স্থানীয় এলাকাবাসী।
উপজেলা পরিষদ সূত্রে জানা যায়, এ উপজেলায় অন্তত ১৫ টি ইটভাটা রয়েছে। বেশির ভাগ ইটভাটায় নিয়ম মেনে পরিচালিত হচ্ছে না। প্রকৌশল বিভাগ জানিয়েছেন, ক্ষেত্র বিশেষে প্রায় ২৪ ফুট প্রস্থের সড়কটির অনেকাংশ দখল করে ইটভাটার কাজ করায় সাধারণ মানুষকে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।
এ বিষয়ে ইটভাটার মালিক ঈশ্বরগঞ্জ ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম ভুঁইয়া জানান, সড়কে ধুলা-বালি হওয়ার কারণে পানি দিয়ে তা নিরসন করেন। ইটভাটার কাজ সড়কে করেন না, কাঠও পুড়ান না।
ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাজীব কুমার সরকার বলেন, ইটভাটা গুলোতে দ্রুত অভিযান চালিয়ে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম