সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক, চাঁদপুর : চাঁদপুরের হাইমচর উপজেলার নীলকমল ওচমানিয়া উচ্চবিদ্যালয়ের ছাত্রদের তৈরি ‘মানবসেতু’তে জুতা পরে পার হওয়ার ঘটনায় ৫২ জনের সাক্ষ্য নেওয়া হয়েছে।

তদন্ত কর্মকর্তা কর্মকর্তা চট্টগ্রাম বিভাগীয় অতিরিক্ত কমিশনার (উন্নয়ন) সৈয়দা সারোয়ার জাহান দ্য রিপোর্টকে জানান, ‘এ পর্যন্ত ৫২ জনের সাক্ষ্য নেওয়া হয়েছে। রোববার চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনারের কাছে প্রতিবেদন জমা দেবেন। বিভাগীয় কমিশনার তদন্ত প্রতিবেদন মন্ত্রণালয়ে পাঠাবেন।

শুক্রবার (৩ ফেব্রুয়ারি) উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের মাধ্যমে চিঠি পাঠিয়ে এই ঘটনার জন্য ভুল স্বীকার করে তদন্ত কমিটির কাছে ক্ষমা চেয়েছেন অভিযুক্ত নূর হোসেন পাটওয়ারী।

অভিযুক্ত নূর হোসেন পাটওয়ারীর চিঠিতে দুঃখ প্রকাশ ও ক্ষমা প্রার্থনা করে উল্লেখ করেছেন, ‘গত ৩০ জানুয়ারি হাইমচর উপজেলাস্থ ঐতিহ্যবাহী নীলকমল ওচমানিয়া হাইস্কুলের বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠানে শরীরচর্চা প্রদর্শনীর অংশ হিসেবে বিদ্যালয়ের ছাত্ররা মানবসেতু তৈরি করে। সেখানে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে আমাকে সেই মানবসেতু হেঁটে পার হতে স্কুল কর্তৃপক্ষ, আয়োজক ও ছাত্রদের পক্ষ থেকে উপর্যুপরি অনুরোধ জানানো হয়। অতীতে ছাত্রদের তৈরি এ রকম মানবসেতু হেঁটে পার হয়েছেন স্থানীয় একজন সংসদ সদস্য, একজন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ আরো অনেক গণ্যমান্য ব্যক্তি। প্রথমে আমার আপত্তি থাকলেও তাদের বারবার অনুরোধের প্রেক্ষিতে আমি এ মানবসেতু হেঁটে পার হই। পরবর্তীতে এ বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমসহ বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার ঝড় ওঠে। আমি বিষয়টির আকস্মিকতায় কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে পড়ি। এ পুরো বিষয়টি নিয়ে আমি অত্যন্ত লজ্জিত, দুঃখিত এবং সবার কাছে ক্ষমাপ্রার্থী।

তিনি আরো উল্লেখ করেছেন, ‘আমি একজন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হিসেবে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের উন্নয়নসহ এলাকার সার্বিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে চলেছি। এই স্কুলের বার্ষিক ক্রীড়ানুষ্ঠানে ছাত্রদের শরীরচর্চা প্রদর্শনীর একটি বিশেষ অংশ হিসেবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত প্রধান অতিথিদের ছাত্রদের নির্মিত মানবসেতুর ওপর দিয়ে হেঁটে যাওয়া একটি রীতিতে পরিণত হয়েছে। তবুও এ বিষয়টি যে বৃহত্তর পরিসরে অগ্রহণযোগ্য বলে বিবেচিত হতে পারে তা তাৎক্ষণিক আমি অনুধাবন করতে পারিনি। স্কুল কর্তৃপক্ষ, অনুষ্ঠানের আয়োজকবৃন্দ এবং অংশগ্রহণকারী ছাত্রদের উপর্যুপরি অনুরোধে আমি যে মানবসেতুর ওপর দিয়ে হেঁটে গেছি জনমনে সে বিষয়টির অগ্রহণযোগ্যতা অনুধাবন করতে না পারার ভুল আমি অত্যন্ত বিনয়ের সঙ্গে স্বীকার করছি এবং আবারও সবার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করছি। আশা করি আমার এই অনিচ্ছাকৃত ভুলটিকে সবাই ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।’

এদিকে শুক্রবার দুপুরে মুন্সিগঞ্জের টঙ্গিবাড়িতে তুলকাই সেতুর উদ্বোধন শেষে স্থানীয় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের নূর হোসেন পাটওয়ারীকে দল থেকে সাময়িক বহিষ্কারের কথা জানান। একই সঙ্গে কেন তাকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হবে না তা জানতে চেয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হবে বলেও জানান।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র নাছির উদ্দিন আহম্মেদ জানান, বিষয়টি আমি শুনেছি। কেন্দ্রীয়ভাবে দলের সাধারণ সম্পাদক সাহেব সিদ্ধান্ত নিতেই পারেন। জেলা সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল বলেন, এ রকম কোনো তথ্য আমার জানা নেই।

চাঁদপুর-হাইমচর নির্বাচনী এলাকায় এ ন্যক্কারজনক ঘটনার বিষয়ে স্থানীয় এমপি ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি ঘটনাটিকে অত্যন্ত দুঃখজনক ও অগ্রহণযোগ্য আখ্যায়িত করে এক বিবৃতি দিয়েছেন। তিনি বলেন, আমি দেশের বাইরে ছিলাম, বৃহস্পতিবার দেশে এসে আমার নির্বাচনী এলাকায় এ ঘটনার বিষয়টি জানতে পারি। জনমনের ক্ষোভের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে সংশ্লিষ্ট ওই জনপ্রতিনিধি পুরো ঘটনাটির জন্য দুঃখ প্রকাশ করে সবার কাছে ক্ষমা চাইবেন বলে আশা করি। তিনি বলেন, এই বিদ্যালয়ে এ ধরনের একটি ইভেন্ট যে প্রচলিত আছে তা আমার জানা ছিল না। জানা থাকলে আমি অবশ্যই বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে এ ধরনের ইভেন্ট বাতিল করতে বলতাম।

মামলার বিষয়ে হাইমচর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সৈয়দ মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘শিশু নির্যাতন আইনে পাঁচজনের বিরুদ্ধে যে মামলাটি হয়েছে সে মামলায় আসামিদের গ্রেফতারের জোর চেষ্টা চলছে। আসামিরা বর্তমানে পলাতক রয়েছে।’

উল্লেখ্য, চাঁদপুরের হাইমচরের নীলকমলে সোমবার (৩০ জানুয়ারি) বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠানে ছাত্রদের পিঠের ওপর দিয়ে হেঁটে ‘মানবসেতু’ পার হওয়ার ঘটনায় ব্যাপক সমালোচনা তৈরি হয়। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে নিন্দার ঝড় ওঠে। ছাত্রদের তৈরি ‘মানবসেতু’ পার হয়ে হাইমচর উপজেলা চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটোয়ারী খুশি হয়ে ৫ হাজার টাকাও দেন। বুধবার (১ ফেব্রুয়ারি) হাইমচর থানায় রাতে এ ঘটনায় আব্দুল কাদের গাজী নামে এক অভিভাবক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটওয়ারী ও ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোশারফ হোসেনসহ পাঁচজনকে আসামি করে শিশু নির্যাতন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম