সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : পাকিস্তান হাইকমিশনের কাশ্মির সংহতি দিবস পালনকে শিষ্টাচার বহির্ভূত বলেছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের গণহত্যা এবং জাতিসত্ত্বার উপরে আক্রমণ করার বিষয়ে পাকিস্তান সাফাই গায়। মাফ চায় না। যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষে অবস্থান নেয়। সেখানে কাশ্মির জনগোষ্ঠীর জন্য দরদ দেখানোটা মায়াকান্না ছাড়া আর কিছুই নয়।’

রবিবার সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের এসব কথা জানান মন্ত্রী। বলেন, কাশ্মির সংহতি দিবস পালনের মধ্যদিয়ে পাকিস্তান ভারতের দ্বিপাক্ষিক সমস্যা বাংলাদেশের মাটিতে টেনে আনার একটা অপকৌশল ও কূটচাল ছাড়া আর কিছুই না। এবং এটাকে আমি শিষ্টাচার বহির্ভূত একটি ঘটনা বলে মনে করি।’

মন্ত্রী জানান, ‘পাকিস্তান রাষ্ট্র জন্মের পর থেকে এই রাষ্ট্রের শাসক গোষ্ঠী ধারাবাহিকভাবে বাঙালি, বেলুচ, পাখতুন, সিন্ধ জাতিসত্ত্বার উপরে সীমাহীন নির্যাতন চালিয়ে আসছে। পাকিস্তান শাসক গোষ্ঠীর ইতিহাস হচ্ছে বিভিন্ন জাতিসত্ত্বার মানুষদের দমন করা এবং ধ্বংস করা। এই পাকিস্তান ১৯৭১ সালে বাঙালি জাতিসত্ত্বার উপরে নির্মম গণহত্যা পরিচালিত করেছে। মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে। যুদ্ধাপরাধ করেছে।’

হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘সেই পাকিস্তানী শাসক গোষ্ঠী ৪৫ বছরে একাত্তরে পাকিস্তানিদের করা গণহত্যার ব্যাপারে মাফ চায়নি। ভুল স্বীকার করেনি। বরং তারা এখনো ছাফাই গেয়ে যাচ্ছে। এবং গণহত্যার পক্ষে অবস্থান গ্রহণ করেছে। যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষে অবস্থান নিয়েছে। এরকম একটি পরিস্থিতিতে আমরা মনে করি এটা অত্যান্ত ন্যাক্কারজনক রাজনৈতিক অবস্থান।’


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম