সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে একীভূত ও গুণগত শিক্ষা লাভে নয়টি দেশের সমন্বয়ে শুরু হওয়া ই-নাইন বৈঠকে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, ‘গুণগত শিক্ষাই আমাদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ।’

রোববার রাজধানী হোটেল র্যাডিসন ব্লুতে তিন দিনব্যাপী ই-নাইন মন্ত্রী পর্যায়ের সম্মেলনে বাংলাদেশ সেশনে মন্ত্রী এ কথা বলেন। এর আগে সকালে এই সম্মেলন উদ্বোধন করেন শেখ হাসিনা। বাংলাদেশে এবারই প্রথম এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘গুণগত শিক্ষাই আমাদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। এটা কঠিন। কীভাবে এটি মোকাবেলা করা যায় তা নিয়ে কাজ করছে বাংলাদেশ। চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সৃজনশীল পদ্ধতি, শ্রেণিকক্ষ মূল্যায়ন, একদল শিক্ষাবিদরা কারিকুলাম নিয়ে কাজ করতে কীভাবে গুণগত শিক্ষায় আমরা শিশুদের শিক্ষিত করতে পারি।’

তিনি বলেন, গুণগত শিক্ষার মূল অন্তরায় আমাদের এখনও দক্ষ শিক্ষক তৈরি হয়নি। আমরা প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নিয়েছি দক্ষ শিক্ষক তৈরি করতে। বাংলাদেশে আমরা একীভূত শিক্ষা শুরু করেছি। প্রতিবন্ধী শিশুদের বিষয়টি মাথায় রেখে এটি চালু করা হয়েছে। প্রতিবন্ধীদের উপযোগী করে আবাসন তৈরি করেছি। ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীদের জন্য পাঁচটি ভাষার বই প্রমববারের মতো দেয়া হয়েছে। সাক্ষরতা বাড়াতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে বাংলাদেশ। ঝরেপড়া রোধ করতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছি।

নাহিদ বলেন, ‘উচ্চ শিক্ষায় মেয়েদের উপস্থিতি এখনও আশানুরুপ নয়। বর্তমানে ২৫ শতাংশ নারী উচ্চ শিক্ষা নিচ্ছে। প্রাথমিক ও মাধ্যমিকে শিক্ষার্থী বেড়েছে। শিক্ষায় নারী পুরুষের সমতা আনতে হবে।

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের সভাপতিত্বে বৈঠকে অংশ নিয়েছেন ইউনেস্কোর ডাইরেক্টর জেনারেল ইরিনা বোকোভা, ভারতের শিক্ষামন্ত্রী  উপেন্দ্র কিশোর ইন্দোনিশিয়ার শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক মন্ত্রণালয়ের গবেষণা ও উন্নয়ন বিষয়ক চেয়ারম্যান টোটো সুপ্রায়ান্ত, নাইজেরিয়ার শিক্ষামন্ত্রী এনন্থনি গোজি আনওয়াক, পাকিস্তানের শিক্ষামন্ত্রী মো. বালিজুর রেহমান, ব্রাজিলের শিক্ষামন্ত্রীর প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত ওয়ানজা ক্যামপস দ্য নোবিগা। ম্যক্সিকো কোনো প্রতিনিধি সম্মেলনে অংশ নেয়নি।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম