সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : নতুন নির্বাচন কমিশন (ইসি) প্রধানমন্ত্রীর পছন্দের প্রতিফলন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেছেন, নতুন ইসি নিয়ে বিএনপি নিরাশ এবং হতাশ হয়েছে।

মঙ্গলবার রাতে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে ইসি নিয়ে আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়ায় এ কথা বলেন মির্জা ফখরুল।

নবগঠিত নির্বাচন কমিশন বিষয়ে বিএনপি ও ২০ দলীয় জোটের আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া রাতে সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে জোটের অবস্থান তুলে ধরেন ফখরুল।

তিনি বলেন, বিএনপি একটি গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল। ২০ দলীয় জোটভুক্ত প্রত্যেকটি দলও গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল। একমাত্র নির্বাচনের মাধ্যমেই রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব পালনে নীতিতে আমরা বিশ্বাসী। দুর্ভাগ্যক্রমে ২০১৪ সালে ৫ জানুয়ারির নির্বাচন সেই প্রত্যাশাকেই ধূলিসাৎ করে দিয়েছে। সৃষ্টি হয়েছে গভীর জাতীয় সংকট। আর তাই এবারের নির্বাচন কমিশন গঠনের বিষয়টি বিএনপি শুরু থেকেই অসীম গুরুত্ব ও গভীর ঐকান্তিকতার সঙ্গে নিয়েছিল।

তিনি বলেন, আমরা চেয়েছিলাম যাদের নিয়ে নির্বাচন কমিশন গঠন করা হবে তারা হবেন সৎ, দলনিরপেক্ষ, দক্ষ, সাহসী, প্রজ্ঞাবান, কর্ম অভিজ্ঞতাসম্পন্ন এবং সবার নিকট গ্রহণযোগ্য। এই উদ্দেশ্যেই বিএনপি চেয়ারপারসন ও জোটনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া গত ১৮ নভেম্বর সংবাদ সম্মেলন করে ১৩ দফা প্রস্তাব জনগণের সামনে উপস্থাপন করেন। দেশনেত্রীর এই যৌক্তিক প্রস্তাবে দেশবাসী উৎসাহিত হয় এবং যথার্থই নিরপেক্ষ, যোগ্য ও সাহসী একটি নির্বাচন কমিশন গঠিত হবে বলে আশা করে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, গতকাল ৬ ফ্রেব্রুয়ারি/১৭ শেষ মুহূর্তে অত্যন্ত দ্রুততার সঙ্গে সার্চ কমিটির প্রস্তাবিত ১০ নাম থেকে একজনকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও ৪ জনকে নির্বাচন কমিশনার পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। সব মহল থেকে দাবি ছিল সার্চ কমিটি কর্তৃক বাছাইকৃত এই ১০ জনের নাম জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে এবং তাদের জীবন বৃত্তান্ত ও কর্ম অভিজ্ঞতা সম্পর্কে প্রয়োজনীয় তথ্য সরবরাহ করা হবে। এ পন্থা অনুসরণ করা হলে প্রক্রিয়াটি কিছুটা হলেও স্বচ্ছতা পেত। কিন্তু তা করা হয়নি। আমরা নিরাশ ও হতাশ হয়েছি।

তিনি বলেন, শেষ মুহূর্তে রুদ্ধশ্বাস দ্রুততার সঙ্গে সিদ্ধান্ত গ্রহণ অনেক সন্দেহের জন্ম দিয়েছে। এসব সন্দেহের মধ্যেও একটি বড় সন্দেহ হলো কাদেরকে নির্বাচন কমিশনে রাখা হবে সেটি ছিল শাসকমহলের পূর্ব পরিকল্পিত। “রাষ্ট্রপতি যে সিদ্ধান্ত নেবেন সেই সিদ্ধান্তই আমরা মেনে নেবো” এই উক্তি করে প্রধানমন্ত্রী আসলে জাতিকে বিভ্রান্ত করতে চেয়েছেন। সাংবিধানিক ব্যাখ্যা অনুযায়ী দু’টো বিষয় ছাড়া (প্রধানমন্ত্রী ও প্রধান বিচারপতি নিয়োগ) অন্য সব বিষয়ে রাষ্ট্রপতি প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ গ্রহণ করতে বাধ্য। সংগত কারণেই আমরা মনে করতে পারি বর্তমান নির্বাচন কমিশন গঠনে প্রধানমন্ত্রীর পছন্দেরই প্রতিফলন ঘটেছে।

উল্লেখযোগ্য যে, প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা যুগ্ম সচিব হিসেবে চাকরিজীবন শেষ করেন। অতিরিক্ত সচিব এবং সচিব হয়েছেন শুধুই কাগজে। প্রকৃতপক্ষে তিনি একদিনের জন্যও অতিরিক্ত সচিব কিংবা সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেননি। ফলে এসব পদে দায়িত্ব পালনের কোনো বাস্তব অভিজ্ঞতা তার নেই।

তিনি আরও বলেন, অভিজ্ঞ সচিব ছাড়া প্রধান নির্বাচন কমিশনার নিয়োগের এই ঘটনা অভূতপূর্ব। রাজনৈতিক বিবেচনা ছাড়া এমন হওয়ার কথা নয়।

মির্জা ফখরুল বলেন, আমাদের দল সম্পর্কে তার মনে ক্ষোভ থাকতে পারে। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ শাসনামলে পদোন্নতি পেয়ে তিনি আওয়ামী লীগের প্রতি অনুরাগ পোষণ করতে পারেন। এই দুই বিপরীত পরিস্থিতির মধ্যে তিনি কতটুকু নিরপেক্ষতা অবলম্বন করবেন সে ব্যাপারে জনমনে  যৌক্তিক প্রশ্ন রয়েছে। একটি নির্বাচন কমিশনের যাত্রা শুরুতে আস্থার সংকট ভবিষ্যতে বড় ধরনের সমস্যার জন্ম দিতে পারে।

তিনি বলেন, সর্বোপরি অভিযোগ আছে তিনি ১৯৯৬ সালে কুমিল্লার জেলা প্রশাসক হিসেবে বিএনপি সরকার-বিরোধী জনতার মঞ্চের একজন সংগঠক ছিলেন। অথচ কর্মরত সরকারি-কর্মকর্তারা কোনো রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িত হতে পারেন না। এমন রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িত হওয়া সরকারি চাকরি-বিধির নিদারুণ লঙ্ঘন এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

বিএনপির এই মহাসচিব বলেন, ২০১০ থেকে ২০১৫ পর্যন্ত তিনি মিউনিসিপাল ডেভেলপমেন্ট ফান্ড নামের সরকারি একটি প্রজেক্টের এমডি হিসেবে লাভজনক পদে কাজ করেছেন। আমরা সরকারি চাকরি শেষে লাভজনক পদে অধিষ্ঠিতদের নির্বাচন কমিশনে অন্তর্ভূক্ত না করার প্রস্তাব করেছিলাম এই জন্য যে, সাধারণত সরকারের অনুগ্রহভাজনদেরই এসব পদে নিয়োগ দেয়া হয়।

ফখরুল বলেন, আমরা চেয়েছিলাম কারও কাছে বিশেষভাবে কৃতজ্ঞ কিংবা কারও প্রতি ক্ষুব্ধ কোনো ব্যক্তি যেন নির্বাচন কমিশনের মতো নিরপেক্ষ সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ না পান। কিন্তু দুর্ভাগ্যক্রমে তাই হয়েছে। এসব কারণে স্বাভাবিকভাবেই জনমনে কে এম নুরুল হুদা সম্পর্কে নেতিবাচক উপলব্ধি সৃষ্টি হয়েছে। বিষয়টি সার্চ কমিটি এবং রাষ্ট্রপতির বিবেচনায় না নেয়া খুবই রহস্যজনক।

তিনি আরও বলেন, আমরা মনে করি এমন একজন বিতর্কিত সাবেক সরকারি কর্মকর্তার নেতৃত্বে গঠিত কোনো প্রতিষ্ঠান নির্মোহভাবে দায়িত্ব পালন করতে পারবে না। কাজেই এই প্রধান নির্বাচন কমিশনারের নেতৃত্বে সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠান সম্ভব হবে না।

এমন একটি নির্বাচন কমিশন গঠনের পর নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সহায়ক সরকার গঠনের প্রয়োজনীয়তা বিষয়ে আমাদের প্রস্তাবের যৌক্তিকতা আরও দৃঢ় হয়েছে।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম