সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : জাতীয় পার্টিকে (জাপা) জনগণ আবার ক্ষমতায় দেখতে চায় বলে দাবি করেছেন দলের চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তিনি বলেছেন, বাংলাদেশের যেখানেই গেছেন, সেখানেই মানুষের কাছ থেকে এই চাওয়া শুনে আসছেন।

বৃহস্পতিবার রাজধানীতে দলের কেন্দ্রীয়, জেলা ও উপজেলা কমিটির যৌথ সভায় এ কথা বলেন এরশাদ।

দিনাজপুরে তার একটি সফরের কথা উল্লেখ করে জাপা চেয়ারম্যান বলেন, ‘সেদিন চিরিরবন্দর (দিনাজপুরের একটি উপজেলা) গেলাম, সকলেই বলছে, ‘স্যার, আবার ক্ষমতায় আসেন’। আবার কি ক্ষমতায় আসতে পারব’- এমন প্রশ্ন করে তিনি বলেন, ‘ক্ষমতায় আবার আসতেই হবে।’

১৯৮১ সালে সেনাবাহিনীর প্রধান থাকাকালে প্রধান সামরিক আইন প্রশাসক এবং পরে রাষ্ট্রপতি হওয়া এরশাদ গণ-আন্দোলনের মুখে ক্ষমতা ছাড়েন ১৯৯০ সালের ৬ ডিসেম্বর। এরপর থেকেই তিনি দাবি করে আসছেন, জনগণ তাকে রাষ্ট্রক্ষমতায় আবার দেখতে চাইছে।

দলকে রাষ্ট্রক্ষমতায় নিয়ে যাওয়ার জন্য কী করতে হবে সেটাও বাতলে দেন এরশাদ। বলেন, ‘দলকে সাংগঠনিকভাবে শাক্তিশালী করতে হবে। তা না হলে আমরা এগিয়ে যেতে পারব না।’

নির্বাচনকে যুদ্ধক্ষেত্র হিসেবে উল্লেখ করে সাবেক এই সামরিক শাসক বলেন, ‘এখানে সেনাপতি লাগে, সৈনিক লাগে। আগামী নির্বাচনের জন্য আমি সেনাপতির দায়িত্ব পালন করব। প্রত্যেক জেলা কমিটির সভাপতির কাছে আমার নির্দেশ থাকবে, আগামী নির্বাচন যারা করতে চান তাদের লিস্ট পাঠান। নির্বাচনে জেতার জন্য সৈনিক চাই, সেনাপতি চাই। আর সময়ক্ষেপণ করা যাবে না। সর্বশক্তি নিয়ে মাঠে নামতে হবে।’

তবে নেতাকর্মীদের উদ্দেশে এরশাদ বলেন, জাতীয় পার্টির কোনো বন্ধু নেই। তিনি বলেন, ‘আমরাই আমাদের বন্ধু। দুর্বলের সাথে কেউ হাত মেলাতে আসে না। প্রতিটি কর্মীকে শক্তিশালী দেখতে চাই, জাতীয় পার্টিকে শক্তিশালী দেখতে চাই। জাতীয় পার্টিকে ইতিহাসের পাতায় দেখতে চাই।’ তিনি বলেন, ‘আমরা মরে যাই নাই, নিঃশেষ হয়ে যাই নাই।’

সিইসিকে দেখে খুশি এরশাদ

নতুন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদাকে নিয়ে আশাবাদী জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তিনি বলেন, ১৯৯১ সাল থেকে প্রতিটি নির্বাচন কমিশনই তার দলের প্রতি অন্যায় করেছে। নতুন সিইসি সেটা করবেন না বলে আশাবাদী তিনি।

এ সময় গত সোমবার নিয়োগ দেয়া নির্বাচন কমিশন নিয়ে কথা বলেন এরশাদ। বলেন, ‘এ যাবত কোনো নির্বাচন কমিশনই আমাদের পক্ষে ছিল না। তবে নতুন প্রধান নির্বাচন কমিশনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি কারো কথা শুনবেন না। তাই আমরা আশাবাদী, খুশি হয়েছি।’

সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম খুনের ঘটনায় শূন্য হওয়া গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে উপনির্বাচন বর্তমান কমিশনের প্রথম পরীক্ষা মন্তব্য করে এরশাদ বলেন, ‘এই পরীক্ষায় আমাদেরও পাস করতে হবে।’ তিনি বলেন, ‘আমরা চাই সুষ্ঠু নির্বাচন হোক। এই উপনির্বাচন থেকেই আমাদের বিজয়যাত্রা শুরু হোক।’

আগামী ২২ মার্চের ভোটকে সামনে রেখে একজোট হয়ে কাজ করতে দলের নেতা-কর্মীদের নির্দেশ দেন এরশাদ। বলেন, ‘নতুন নির্বাচন কমিশনের অধীনে প্রথম নির্বাচন। বিজয়ের পতাকা ওখান থেকেই উত্তোলন হোক। এ কারনে সকল বিভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ ভাবে শামীম হায়দার পাটোয়ারীকে (এরশাদ এরই মধ্যে তাকে প্রার্থী ঘোষণা করেছেন) বিজয়ী করে আনতে হবে।’

নেতাকর্মীদের মনোভাব দেখে মনোনয়ন দিতে রওশনের আহ্বান

আগামী সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন দেয়ার ক্ষেত্রে স্থানীয় নেতাকর্মীদের মনোভাব বিবেচনায় রাখার তাগিদ দেন জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ। তিনি বলেন, ‘এলাকাভিত্তিক নেতাকর্মীর মনোভাব বুঝে মনোনয়ন দিতে হবে। চিন্তা-ভাবনা করে সিদ্ধান্ত নিতে হবে এবং সেই সিদ্ধান্তে অটল থাকতে হবে।’

ছাত্র সমাজ ও যুব সংহতি রওশন এরশাদের এই বক্তব্য চলাকালে হট্টগোল করে। এ সময় রওশন বলেন, ‘ছাত্র সমাজ, যুব সংহতি তোমাদের যা কথা আছে আমি শুনব। এভাবে বিশৃঙ্খলা করলে দল ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তোমাদের কোনো কথা থাকলে আমার বাসায় আসো, আমি তোমাদের কথা শুনব।’

পরে রওশন বলেন, ‘এ যাবত চারটি নির্বাচন করেছে জাতীয় পার্টি, তার তিনটি আমি করেছি। অনেক ঝুঁকি নিয়ে, সন্ত্রাসী-বোমাবাজি উপেক্ষা করে জীবন বাজি রেখে কাজ করেছি। তোমরা যদি আমার সাথে থাকো, তাহলে পার্টিকে অনেক দূর নিয়ে যেতে পারব।’

যৌথ সভায় আরও বক্তব্য দেন জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান জি এম কাদের, মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার, সুন্দরগঞ্জ উপ-নির্বাচনে জাতীয় পর্টির ঘোষিত প্রার্থী শামীম হায়দার পাটোয়ারী প্রমুখ।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম