সংবাদ শিরোনাম

 

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি : ঢাকা-টাঙ্গাইল ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়েছে। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন যাত্রীরা। বৃহস্পতিবার রাতে সৃষ্টি হওয়া এ যানজট শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের প্রায় ৩০ কিলোমিটার সড়ক জুড়ে অব্যাহত রয়েছে।

অন্যদিকে, বেলা ১২টার দিকে মির্জাপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে ( ওসি-তদন্ত) বহন করা গাড়িকে মহাসড়কের জামুর্কী নামক স্থানে একটি ট্রাক ধাক্কা দিলে এই যানজট সৃষ্টি হয়।

কুমিল্লা প্রতিনিধি কামাল উদ্দিন জানিয়েছেন, ঢাকা থেকে খাগড়াছড়ি যাওয়ার পথে দাউদকান্দি যানজটের কবলে পড়েন পুলিশের আইজি এ কে এম শহীদুল হক। পুলিশ মহাপরিদর্শক দীর্ঘ যানজট পেরিয়ে সকাল ৮টায় গৌরীপুর বাসস্ট্যান্ড পৌঁছে ১৫ মিনিট যানজটে আটকা পড়েন। কিছু দূর যাওয়ার পর পুনরায় পূর্ব পেন্নাই পলহদ্দী পাড়ে যানজটের কবলে পড়তে হয় তাকে। পরে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আপ্রাণ চেষ্টা করে যানজট পার করে তাকে নিয়ে যায়।

বাসযাত্রী সায়ীদ আলমগীর জাগো নিউজের এই প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, যানজট কাকে বলে আজ দেখলাম। বৃহস্পতিবার রাত ৯টায় কক্সবাজার থেকে রওনা হয়েছি, শুক্রবার সকাল ৭টায় ঢাকায় পৌঁছানোর কথা, আর পৌঁছালাম বিকেল ৩টায়।

দাউদকান্দি হাইওয়ে পুলিশ জানায়, ৯ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টায় দাউদকান্দি সেতুর উপর ঢাকাগামী একটি ট্রাকের সঙ্গে বিপরীত দিকগামী প্রাইভেটকারে মুখোমুখি সংর্ঘষ হয়। এর ফলে মহাসড়কে সৃষ্টি হয় তীব্র যানজট। হাইওয়ে পুলিশ দুই ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে দুর্ঘটনা কবলিত গাড়ি দুটি উদ্ধার করে। রাতে সৃষ্টি হওয়া এ যানজট ১০ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার পর্যন্ত আরও দীর্ঘ হয়।

রাত থেকে পুলিশ আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়েও যানজট পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে পারেনি। চালকদের বেপরোয়া, দ্রুতগতি, ওভারটেকিং, রং সাইডে যানবাহন চলাচলের কারণে সৃষ্টি হয় এ যানজট। শুক্রবার সকালে এ সমস্ত যানবাহনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করে মামলা দায়ের করেন হাইওয়ে পুলিশ।

দুপুর ১টার দিকে দাউদকান্দি হাইওয়ে থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল আউয়াল জানান, যানজট কমে আসলেও যানবাহনের গতি খুব কম, তাছাড়া আজ মহাসড়কে সকল ধরনের যানবাহনের চাপ খুব বেশি। তেবে এখন গাড়ি ধীর গতিতে চলা শুরু হয়েছে।

অপরদিকে মির্জাপুর প্রতিনিধি এস এম এরশাদ জানিয়েছেন, শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে মির্জাপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (তদন্ত)বহন করা গাড়িকে মহাসড়কের জামুর্কী নামক স্থানে টাঙ্গাইলগামী একটি ট্রাক সামনে থেকে ধাক্কা দিলে যানজট তীব্র আকার ধারণ করে।

যানজট মহাসড়কের চন্দ্রা থেকে বাসাইলের বাঔখোল এলাকা পর্যন্ত প্রায় ৪০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে স্থায়ী হয়। তবে যানজট থেমে থেমে রাতভর থাকতে পারে বলে হাইওয়ে গোড়াই থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) কিবরিয়া আশঙ্কা করেছেন।

পুলিশ, যাত্রী, শ্রমিক ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার বিকেলের পর থেকে মহাসড়কের যানবাহনের চাপ কয়েকগুণ বেড়ে যায়। সন্ধ্যার পর থেকে মহাসড়কে থেমে থেমে যানজটের সৃষ্টি হয়। এছাড়া রাত সাড়ে ৯টার দিকে মহাসড়কের কালিয়াকৈর উপজেলা বংশাই ব্রিজের উপর একটি বাস ও মির্জাপুর উপজেলার ধেরুয়া এলাকায় অপর একটি বাস বিকল হলে যানজট তীব্র আকার ধারণ করে। যানজট একপর্যায় বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্ব প্রান্ত থেকে কালিয়াকৈরের চন্দ্রা পর্যন্ত প্রায় ৬৫ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে স্থায়ী হয়। পুলিশ দুর্ঘটনাকবলিত যানবাহন রাস্তা থেকে সরিয়ে নিলে রাতে থেমে থেমে যানচলাচল শুরু হয়।

তবে শুক্রবার সকাল ৮টার পর থেকে মহাসড়কে যানবাহনের চাপ বেড়ে যাওয়ায় পুনরায় থেমে থেমে যানজটের সৃষ্টি হয়। সকাল দশটার দিকে চন্দ্রার জোড়াপাম্প এলাকায় মো. জাকির হোসেনের ঝুটের গুদামে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। পরে মহাসড়কের যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

বেলা ১১টার পর যানবাহন কিছুটা চলাচল করলেও দুপুর ১২টার দিকে জামুর্কী নামক স্থানে রাস্তার পাশে থামানো পুলিশের গাড়িকে ধাক্কা দিলে যান চলাচল চন্ধ হয়ে তীব্র আকার ধারণ করে যানজট। দুপুরের পর থেকে পরিধি বেড়ে বাসাইলের বাঔখোলা থেকে চন্দ্রা পর্যন্ত প্রায় ৪০ কিলোমিটার এলাকায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়।

দুপুর ২টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে রেকারের সাহায্যে দুর্ঘটনা কবলিত গাড়িটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। পরে কিছুটা সময় গাড়ির চাকা ঘুরলেও ৩টার পর পুনরায় চাকা থেমে যায়। অধিকাংশ যানবাহনকেই ৩০ মিনিটের রাস্তা যেতে তিন ঘন্টা থেমে থাকতে হচ্ছে বলে চালকরা জানিয়েছেন।

বগুড়া থেকে আলু ভর্তি ট্রাক নিয়ে আসা চালক মোশারফ হোসেন জানান, দুপুর ১২টার দিকে নাটিয়াপাড়া এলাকায় এসে যানজটে আটকা পড়েছেন।  ২০ মিনিটের রাস্তা প্রায় তিন ঘণ্টায় মির্জাপুর বাইপাস এলাকা পর্যন্ত আসতে পেরেছেন।

টাঙ্গাইল থেকে ঢাকাগামী প্রাইভেটকারের চালক আরজু মিয়া জানান, মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে থেমে থেমে যানজট লাগছে। তবে দুপুর ১টার দিকে মহাসড়কের কুর্ণী পৌঁছে যানজটে আটকা পড়েন। পাঁচ মিনিটের রাস্তা আসতে প্রায় এক ঘণ্টা সময় লেগেছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

মির্জাপুর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. বদিউজ্জামান বলেন, দুর্ঘটনা ও রাস্তায় যানবাহনের চাপ বৃদ্ধি পাওয়ায় মাঝেমধ্যেই যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। তাছাড়া শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে থানার তদন্ত কর্মকর্তা মো. তুহিন খানকে বহন করা জিপটিকে টাঙ্গাইলগামী একটি ট্রাক সামনে থেকে ধাক্কা দিলে মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পুলিশ ট্রাকটিকে আটক করেছে। এতে জিপের সামনের অংশে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে। তবে পুলিশের কোনো সদস্য আহত হননি বলে তিনি উল্লেখ করেন।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম