সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : ১১তম দিন শনিবারও বইমেলা ছিল শিশু-কিশোর ও লেখক-পাঠকদের পদচারণায় মুখর। আজ এসেছিল ধারাভাষ্যকার ও রাজনীতিবিদেরাও। মেলায় আসা বইপ্রেমীরা তাদের পছন্দের বইটি কিনতে ঘুরেছেন এক স্টল থেকে অন্য স্টলে। বইমেলা এখন আর শুধু লেখক-পাঠকের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নেই। হয়ে উঠেছে মিলনমেলা।

প্রকাশকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মেলার বিক্রি মূলত গতকাল থেকে পুরোদমে শুরু হয়েছে। আজও বিক্রি ভালো হয়েছে। এখন প্রতিদিনই বিক্রি বাড়বে বলে মনে করছেন তারা। সামনে পয়লা ফাল্গুন, ভালোবাসা দিবস, একুশে ফেব্রুয়ারি মেলায় যেমন ভিড় বাড়বে তেমনি বিক্রিও ভালো হবে বলে জানান তারা।

আজ মেলায় এসেছিলেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তাকে অনেকেই ব্যস্ত হয়ে পড়েন সেলফি তুলতে।তিনিও স্বভাবসুলভ হাসি দিয়ে সবাইকে ছবি তোলার সুযোগ করে দিয়েছেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘বইমেলা আমাদের জাতীয় উৎসবে পরিণত হয়েছে। বইকে ভালোবেসে এত লোক জমায়েত হয়েছে এটা খুবই ভালো লাগছে।’ বইমেলায় আগত দর্শনার্থীদের সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, ‘সবাই যে বই কিনবে সেটা নয়। তারা যে বইমেলায় এসেছে এটাই বড় কথা। এখানে না এসে তারা তো অন্য জায়গায়ও যেতে পারতো।’

আজ মেলায় এসেছিলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরও। তিনি তিনটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করেন। পরে তিনি সাংবাদিকদের সঙ্গে রাজনৈতিক বিষয়েও কথা বলেন। তিনি মেলায় ঢুকতেই তাকে ঘিরে ধরেন সাংবাদিকরা।

মেলায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে মুহাম্মদ জাফর ইকবাল বিকাল সাড়ে ৩টা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত অটোগ্রাফ দেন তার ভক্তদের। এমনকি গাড়িতে ওঠার সময়ও অটোগ্রাফ দেন। তার সঙ্গে সেলফি তো ছিল অনবরত। অটোগ্রাফ নিতে গিয়ে তাকে ঘিরে ধরা বিষয়ে জাফর ইকবাল ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘আসলে আমাকে যারা ঘিরে ধরে তারাতো আমার বন্ধু, কেউ আমার শত্রুতো নয়। তাই আমরা খুব ভালো লাগে।’

মেলায় এসেছিলেন গণসঙ্গীত শিল্পী ফকির আলমগীর। তিনি ঢাকাটাইমকে বলেন, ‘বইমেলা হলো বইয়ের বসন্ত। আমাদের সবারই উচিত বইমেলায় আসা। তবে মেলায় এসে ঘোরাঘুরি সঙ্গে বইও কিনতে হবে।’

শব্দশিল্প প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী শরিফুর রহমান ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘মেলায় ভালোই বিক্রি হচ্ছে। এবার আমাদের স্টলে তারকাদের বেশ কিছু বই এসেছে। এক মধ্যে আছে বৃন্দাবন দাস, তৌকির আহমেদ, শাহেদ শরীফ খানের বই আমরা এনেছি।’

মেলায় ধারাভাষ্যকার চৌধুরী জাফরউল্লাহ্ শরাফাতের বই প্রকাশ করেছে শিখা প্রকাশনী। মেলায় এসেছেন তিনিও। তিনি বলেন, ‘এবার মেলায় আমার প্রথম বই ‘চৌধুরী জাফরউল্লাহ্ শরাফত বলছি’ আসছে। আসা করি আগামীকাল বইটি স্টলে পাওয়া যাবে।’

মেলায় সন্তানকে কোলে নিয়ে ঘুরছেন গৃহিনী নাফিসা বেগম। মেলার পরিবেশ কেমন লাগছে জানতে চাইলে হেসে বলেন, অনেক বড় পরিসর। ঘুরে ঘুরে বই কিনতে ভালোই লাগছে।

স্কুলছাত্র ফাহিম দলবেঁধে বইমেলায় এসেছে। বলল, জাফর ইকবাল স্যারের খুব ভক্ত আমি। অনেক কষ্টে স্যারের অটোগ্রাফ নিতে পেরেছি। আমি গত চার বছর ধরেই মেলায় আসছি। এবার আমার এসএসসি পরীক্ষা চলছে। তবুও এলাম। হুমায়ূন আহমেদ, অধ্যাপক জাফর ইকবাল স্যার, আনিসুল হকের লেখা বই আমার পছন্দ আমার।

বেসরকারি চাকরিজীবী রফিকুল ইসলাম এসেছেন মেলায়। বললেন, আজ কিছু বই কিনেছি এবং ক্যাটালগ সংগ্রহ করছি। ২১ ফেব্রুয়ারি এসে বাকি বইগুলো কিনবো।

দিনভর মেলায় যত আয়োজন

শনিবার সকাল ১১টা থেকে পর্যন্ত ছিল শিশু প্রখর। শিশুদের প্রাণের মেলার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতে আগ্রহের কমতি ছিল না অভিভাবকদের।

অমর একুশে বইমেলার ১১তম দিনে নতুন বই এসেছে ২০১টি এবং ৬২টি নতুন বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করা হয়। বইমেলা শুরু হয় সকাল ১১টায় এবং চলে রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত।

অমর একুশে উদযাপন উপলক্ষে আজ সকালে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয় শিশু-কিশোর সাধারণ জ্ঞান ও উপস্থিত বক্তৃতা প্রতিযোগিতার প্রাথমিক বাছাই পর্ব। প্রতিযোগিতায় বিচারক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক মোহাম্মদ সেলিম, অধ্যাপক আঞ্জুমান আরা এবং মোবারক হোসেন। শিশুকিশোর সাধারণ জ্ঞান প্রতিযোগিতায় ৯০ জন এবং উপস্থিত বক্তৃতা প্রতিযোগিতায় ২৬ জন প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করে।

বিকাল ৪টায় বইমেলার মূলমঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় আবদুল গফুর হালী: জীবন ও কর্ম শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন নাসির উদ্দিন হায়দার। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন রাহমান নাসির উদ্দিন এবং সাইমন জাকারিয়া।  সভাপতিত্ব করেন শামসুল হোসাইন।

রবিবারের অনুষ্ঠান

আগামীকাল রবিবার মেলা শুরু হবে বিকাল ৩টায় এবং চলবে রাত সাড়ে আটটা পর্যন্ত।

এদিন বিকাল ৪টায় বইমেলার মূলমঞ্চে অনুষ্ঠিত হবে দীনেশচন্দ্র সেনের সার্ধশত জন্মবার্ষিকী শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন অধ্যাপক সৈয়দ আজিজুল হক। আলোচনায় অংশগ্রহণ করবেন

ড. মাহবুবুল হক এবং ড. এম আবদুল আলীম। সভাপতিত্ব করবেন অধ্যাপক মোহাম্মদ আবদুল কাইউম। সন্ধ্যায় রয়েছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম