সংবাদ শিরোনাম

 

ক্রীড়া ডেস্ক : হায়দরাবাদ টেস্টে যথারীতি দ্বিতীয় ইনিংসেও টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যান ব্যর্থতার বৃত্ত থেকে বেরিয়ে আসতে পারেননি। নিজেদের নামের প্রতি সুবিচার করে শট খেলতে পারেননি অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানরা। তাদের বিদায়ের পর বোলারদের ম্যাচ বাঁচানোর প্রাণপণ চেষ্টা করেছেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত পাঁচ শতাধিক টেস্ট খেলা অভিজ্ঞ ও শক্তিশালী ভারতের কাছে বাংলাদেশ শেষ দিনের দুই সেশনেই হেরে গেছে ২০৮ রানে।

ম্যাচশেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে আসেন মুশফিকুর রহিম। তার মতে, ফিল্ডিংই বাংলাদেশকে ডুবিয়েছে। তাছাড়া বাংলাদেশ প্রথম ইনিংসে ভারতকে অনেক সুযোগ দিয়েছে। আর ব্যাটিংয়ে পারফরমাররা প্রয়োজন অনুযায়ী পারফরম্যান্স করতে পারেননি। যার ফলশ্রুতিতেই টেস্ট হেরেছে বাংলাদেশ। তবে এই টেস্টের অভিজ্ঞতা ও শিক্ষা আসন্ন শ্রীলঙ্কা সফরে কাজে লাগাবেন বলে জানান বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক।

মুশফিক বলেন, ‘আমি মনে করি প্রথম ইনিংসে বোলিংয়ে আমরা ভারতকে অনেকগুলো সুযোগ দিয়েছি। আমরা যদি তাদের ৫৫০ অথবা ৬০০ এর মধ্যে বেঁধে রাখতে পারতাম তাহলে আমাদেরও একটা সুযোগ তৈরি হতে পারত। এখানে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করা অনেক কঠিন। অবশ্য ভারতের হাতে অনেক বিকল্প ছিল। সেটা কেবল যে তাদের স্পিনারদের মধ্যে তেমন কিন্তু নয়, পেসারদের মধ্যেও।’

বাংলাদেশ অধিনায়ক আরো বলেন, ‘আমরা এই টেস্ট থেকে অনেক কিছু শিখেছি, যা ভবিষ্যতে আমাদের ভালো পারফরম্যান্সের ক্ষেত্রে কাজে লাগবে। আমি আমার সতীর্থদের নিয়ে গর্বিত। এমনকি আমাদের টেল-এন্ডাররাও দারুণ খেলেছে। তবে এখনো আমাদের কিছু জায়গায় উন্নতি করার আছে। সামনে শ্রীলঙ্কায় আমাদের বেশ কিছু ম্যাচ রয়েছে। আশা করছি সেখানে এগুলো কাটিয়ে উঠতে পারব। উভয় ইনিংসে আমরা শতাধিক ওভার ব্যাট করেছি। মেহেদী হাসান ভালো বল করার পাশাপাশি ব্যাটও করেছে। তাইজুল ইসলাম ভালো বল করেছে। কামরুল ইসলাম রাব্বি ভালো খেলেছে। তবে আমি মনে করি, ফিল্ডিং আমাদের পিছিয়ে দিয়েছে। আমরা যদি পুরো পাঁচদিন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারতাম তাহলে ভারতের বিপক্ষে আরো ভালো লড়াই হতো।’


মতামত জানান :

 
 
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম