সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : দায়িত্ব গ্রহণের পরই সব রাজনৈতিক দলের আস্থা অর্জন করে কাজের ঘোষণা দিলেন নবনিযুক্ত প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা। শপথ গ্রহণের পর বুধবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) আগারগাঁওয়ের নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ে প্রথম সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন তিনি।

সিইসি কে এম নুরুল হুদা বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনের কাজে সরকারের প্রভাব বিস্তারের সুযোগ নেই। নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষভাবেই কাজ করবে। সকল রাজনৈতিক দলের যাতে আস্থা অর্জন করা যায়, সেভাবেই নির্বাচন কমিশন কাজ করবে।’

সুষ্ঠু নির্বাচন করাটাই সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ জানিয়ে তিনি বলেন-‘এজন্য কোনো অনিয়ম বরদাশত করা হবে না। আমাদের কাছে এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ সুষ্ঠু নির্বাচন নিশ্চিত করা। এজন্য সহকর্মীদের সঙ্গে আলোচনা করে যে ধরনের পদক্ষেপ প্রয়োজন তাই গ্রহণ করা হবে। নির্বাচনের সময় কেউ যদি কোনো ধরনের প্রভাব বা অনিয়ম করার চেষ্টা করে তাকে কঠোরভাবে দমন করা হবে। কাউকে এ ধরনের কাজ করতে দেওয়া হবে না।’

সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে কারও সঙ্গে ইসি সংলাপ করবে কি না? প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘সিইসি হিসেবে আমার প্রথম কাজ হচ্ছে কমিশনারদের সঙ্গে আলোচনা করে কর্মপরিকল্পনা করা। অন্য রাজনৈতিক অথবা সুশীল সমাজের কারো সাথে আলোচনা করা হবে কি না, সে সিদ্ধান্ত সহকর্মীদের সঙ্গে পরামর্শ করে নেওয়া হবে।’

অতীতে নিজের রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতার কথা অস্বীকার করে সিইসি বলেন, ‘কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আমার কোনো সম্পর্ক নেই। আমি এর আগে নির্বাচনের কোনো দায়িত্বেও ছিলাম না।’

এ সময় অপর চার নির্বাচন কমিশনার সাবেক অতিরিক্ত সচিব মাহবুব তালুকদার, সাবেক সচিব রফিকুল ইসলাম, অবসরপ্রাপ্ত জেলা ও দায়রা জজ কবিতা খানম ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদৎ হোসেন চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে বুধবার সুপ্রিম কোর্টের জাজেস লাউঞ্জে বেলা তিনটা থেকে সোয়া তিনটা পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে শপথ নেন নতুন সিইসি ও অন্য চার কমিশনার। প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এসকে) সিনহা তাদের শপথবাক্য পাঠ করান।

উল্লেখ্য, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনার পর অনুসন্ধান (সার্চ) কমিটির প্রস্তাবের আলোকে গত ৬ ফেব্রুয়ারি নতুন ইসি গঠন করেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম