সংবাদ শিরোনাম

 

ঈশ্বরগঞ্জ প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম : ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে কোনাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে এলাকাবাসী বিক্ষোভ মিছিল করেছে। গতকাল দুপুরে বিদ্যালয়ের সামনে স্কুলটির প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ তুলে ওই বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়।
বিক্ষোভকারীরা জানায়, উপজেলার কোনাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল হালিম প্রতিষ্ঠানের দীর্ঘ দিন ধরে  বিভিন্ন আর্থিক অনিয়ম ও দুর্নীতির সাথে জড়িত রয়েছে। ওই প্রধান শিক্ষক স্কুলে বিভিন্ন শিক্ষা সহায়িকা পাঠ্য করে প্রকাশনীর কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। ২০১৫ সালে স্কুলের নামে বরাদ্দকৃত সোলার প্যানেল স্কুলে স্থাপন না করে টাকা আত্মসাৎ করেন। এছাড়াও বিদ্যালয়ের পুরাতন টিনসেড ঘর বিক্রি, ইট ক্রয় করে কাজ না করে তা বিক্রি, স্কুলের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে নম্বরপত্র, প্রশংসা পত্র ও সনদপত্র প্রদানের নামে টাকা আদায় করে তা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে।
প্রধান শিক্ষকের সেচ্ছাচারিতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করায় চলতি এসএসসি পরীক্ষায় বিদ্যালয়টির সহকারী প্রধান শিক্ষক মো. আবদুল লতিফকে কোনো দায়িত্ব দেওয়া হয়নি। তিনি দীর্ঘ দিন ধরে অত্র স্কুলের পরীক্ষা কেন্দ্রটির সহকারী সচিবের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।
এদিকে দায়িত্ব না পাওয়ায় সহকারী প্রধান শিক্ষক মো. আবদুল লতিফ সভাপতি বরাবর গত ১৩ ফেব্র“য়ারি এক মাসের ছুটির আবেদন করেন। কিন্তু প্রধান শিক্ষক মো. আবদুল হালিম গত বুধবার (১৫ ফেব্র“য়ারি) শিক্ষক মো. আবদুল লতিফকে বিদ্যালয়ে অনুপস্থিতির করণ দর্শানো নোটিশ করেন। নোটিশে বলা হয় একাধিকবার মৌখিক ভাবে সতর্ক করা স্বত্ত্বেও বিনা অনুমতিতে বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকা আইন শৃংখলার পরিপন্থি। এতে বিদ্যালয়ের পাঠদান বিঘœ হওয়ায় কেন আপনার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না, পত্র প্রাপ্তির সাত দিনের মধ্যে লিখিত ভাবে জবাব দিতে নির্দেশ দেন প্রধান শিক্ষক মো. আবদুল হালিম।
বিদ্যালয়টির সহকারী প্রধান শিক্ষক মো. আবদুল লতিফ বলেন, প্রধান শিক্ষকের অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতার প্রতিবাদ করায় তাঁকে এ বছর পরীক্ষা কেন্দ্রের দয়িত্ব দেওয়া হয় নি। ওই অবস্থায় তিনি ব্যক্তিগত কারণে এক মাসের ছুটি নেন সভাপতির কাছ থেকে। কিন্তু  প্রধান শিক্ষক তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ করে। এতে এলাকার লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে প্রধান শিক্ষকের কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানায়।
তবে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান শিক্ষক মো. আবদুল হালিম বলেন, বিনা অনুমতিতে বিদ্যালয়ে না আসায় কারণ দর্শানোর নোটিশ করা হয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগ অস্বিকার করেন তিনি।
কোনাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. হাসান মোর্শেদ বলেন, প্রধান শিক্ষকের অনিয়ম দুর্নীতির বিষয়টি সঠিক নয়। সহকারী প্রধান শিক্ষকের সাথে সম্পর্কের অবনতি হওয়ায় এইসব অভিযোগ উঠেছে। সহকারী প্রধান শিক্ষকের ছুটি সংক্রান্ত একটি আবেদন ১৫ ফেব্র“য়ারি পেয়েছেন। গ্রামের লোকজন প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ মিছিল বের করলে তিনি বিষয়টি দেখে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিলে এলাকাবাসী বিক্ষোভ প্রত্যাহার করে।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম