সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : হাতে হাতে স্মার্ট ফোন। আর ঘরে ঘরে কম্পিউটার ও ইন্টারনেট। পৃথিবীটা হাতের মুঠোয়। তথ্য-প্রযুক্তির উৎকর্ষের এই সময়ে বই পড়ার ধরনেও পরিবর্তন এসেছে।

ছাপার বইয়ের পরিবর্তে অনেকেই ঝুঁকছেন ই-বুকের দিকে। যদিও ছাপার বইয়ের কদর এখনও আমাদের দেশে কোনো অংশ কমেনি। তবুও তার সঙ্গে সঙ্গে বই পড়–য়ারা অভ্যস্থ হচ্ছেন ই-বুকে।

বিশেষ করে তরুণরা ই-বুকের সবচেয়ে বড় পাঠক। বইমেলার বাংলা একাডেমির অংশে ই-বুকের স্টলগুলোতে তাই তরুণ-তরুণীরা ভিড় করছেন প্রতিদিন।

বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণের ৬৮ নম্বর স্টলে ই-বুকের সবচেয়ে বড় প্রতিষ্ঠান ‘সেই বই’-এর স্টল। এখান থেকে জানা গেল এনড্রয়েড, স্মার্ট ফোন বা কম্পিউটারে ‘সেই বই’-এর অ্যাপটি গুগল প্লে স্টোর থেকে প্রথমে ডাউনলোড করে নিতে হবে।

তারপর রেজিস্ট্রেশন করতে হবে ফেসবুক, জি মেইল আইডি বা নাম-ঠিকানা ব্যবহার করে। সেটা করা যাবে বিনামূল্যেই। এতটুকু করতে পারলেই বিনামূল্যে পড়া যাবে সাড়ে পাঁচশ-এর অধিক বই।

‘সেই বই’ এর ই-বুক লাইব্রেরিতে মোট বই আছে ১১শ’র বেশি। দেশের খ্যাতিমান সব কবি, সাহিত্যিকের বই রয়েছে এখানে। আর যে বইগুলো কিনতে হবে তার মূল্য পরিশোধ করা যাবে সব ধরনের ডেভিড কার্ড, ক্রেডিট কার্ড, বিকাশসহ প্রচলিত সব মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে।

‘সেই বই’ এর ই-বুক লাইব্রেরিতে অনুবাদ, অভিধান, আইন, আত্মজীবনী, উপন্যাস, কিশোর উপন্যাস, গবেষণা চলচ্চিত্র, চিরায়ত, ছোটদের বিজ্ঞান গল্প, জীবনী ও সংকলন, দর্শন, নাটক, পরিবেশ ও প্রকৃতি, ব্যবসা, বিজ্ঞান ভ্রমণ ইত্যাদি ক্যাটাগরিতে বই সাজানো আছে।

আর বই কেনা যাবে ৫ থেকে ২০০ টাকার মধ্যে। এ ছাড়াও মেলা উপলক্ষে ‘সেই বই’ এর ই-বুকে থাকছে ৫০% ছাড়। সেই সঙ্গে আরও আছে বিশেষ কুপন ও ১০০ টাকার একটি স্ক্র্যাচ কার্ডের সঙ্গে একটি টি-শার্ট ফ্রি। ‘সেই বই’ এর আরও তথ্য জানা যাবে www.sheiboi.com-এ।

মেলার বাংলা একাডেমির অংশেই ৭০ নম্বর স্টলে রয়েছে বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের সিস্টার কনসার্ন ‘বেঙ্গল ই-বই’ এর স্টল। ই-বই পড়ার বা কেনার মাধ্যম এখানেও একই।

অ্যাপটি ডাউনলোড করে নিয়ে ফ্রিতে রেজিস্ট্রেশন করা যাবে। তারপর বিনামূল্যে পড়া যাবে ৫০টিরও অধিক বই। আর তাদের ই-বুক লাইব্রেরিতে মোট বই আছে প্রায় ৪০০টি। ই-বই কেনা যাবে ৩০ থেকে ১৫০ টাকার মধ্যে। বই কেনার মাধ্যমও আগের মতোই।

আরও তথ্য জানা যাবে www.bengalboi.com-এ। ই-বুকের আরেকটি প্রতিষ্ঠান হচ্ছে ইবিএস এর ‘বইঘর’। এখানে বাংলা লিংক ও রবির গ্রাহকরা আগের মতোই ‘বইঘর’-এর অ্যাপটি ডাউনলোড করে রেজিস্ট্রেশন করবেন।

তাদের রয়েছে ৫০০টি ই-বই। যে বইগুলো বিনামূল্যে পড়া যাবে তার জন্য রেজিস্ট্রেশন করতে হবে বাংলা লিংক বা রবি নাম্বার থেকে। রবি নাম্বারের মাধ্যমে দিনে ১ টাকা ফি দিয়ে ২টি বই ডাউনলোড করা যাবে। আর বাংলালিংক নাম্বারে প্রতিদিন ২ টাকা দিয়ে ৫টি ই-বই ডাউনলোড করা যাবে। সুখের খবর হচ্ছে এখানে মোবাইল ব্যালান্স থেকে খরচ করেই ই-বই পড়া যাবে।

গুলশান থেকে আসা তরুণ কাজী ফায়সাল আহমেদ ‘সেই বই’-এর স্টলে এসে তাদের নতুন বই সম্পর্কে জানছিলেন। তিনি যুগান্তরকে বলেন, ‘বই পড়ার অভ্যাসটা ছোটবেলা থেকেই ছিল। কিন্তু কর্মব্যস্ত জীবন আমাদের।

তাই সবসময় বই পড়তে পারি না। ই-বুক প্রযুক্তির মাধ্যমে মোবাইলে গাড়িতে যেতে যেতে বই পড়তে পারি। মেলায় দেখতে এলাম ‘সেই বই’-এ নতুন কী কী বই এলো। ই-বুকের বিষয়ে তারুণ্যের এ আগ্রহকে ইতিবাচকভাবে দেখেন আগামী প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী ওসমান গণি।

তিনি বলেন, প্রযুক্তির সঙ্গে আমাদেরকে এগিয়ে যেতে হবে। তার জন্য ই-বই একটি ভালো মাধ্যম। আমরাও আমাদের বইগুলো ই-বইয়ে পরিণত করতে যাচ্ছি। তবে ই-বই এখনও ছাপা বইয়ের বিকল্প হতে পারেনি। ই-বইয়ের অবস্থান পুরোপুরি শক্ত হতে আরও বছর দশেক লাগবে।

নতুন বই : বাংলা একাডেমির জনসংযোগ ও সমন্বয় উপবিভাগ থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, বৃহস্পতিবার মেলার ১৬তম দিনে ১০২টি নতুন বই এসেছে। ঐতিহ্য থেকে প্রকাশ হয়েছে অস্ট্রিক আর্যু সম্পাদিত ‘বঙ্গবন্ধুর বাণী’, অনন্যা থেকে প্রকাশ হয়েছে জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলনের উপন্যাস ‘রাত দুপুরে’, কথাপ্রকাশ থেকে প্রকাশ হয়েছে মাহবুব আজীজের উপন্যাস ‘মন্দ্রজাল’, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রকাশিত চলচ্চিত্র ও গণমাধ্যম বিষয়ক ষান্মাসিক জার্নাল ‘ম্যাজিক লণ্ঠন’।

২০১১ সালের ১ জুলাই থেকে এটি নিয়মিতভাবে প্রকাশ হচ্ছে। জার্নালটির সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক কাজী মামুন হায়দার। এবারের বইমেলার লিটলম্যাগ চত্বরে ৭ নম্বর স্টলটি ম্যাজিক লণ্ঠনের। বৃহস্পতিবার আসা আরও নতুন বইয়ের মধ্যে রয়েছে মাওলা ব্রাদার্স থেকে মহাদেব সাহার ‘আমার কবিতা গ্রাম’, চন্দ্রদ্বীপ থেকে আহসান হাবীবের ‘কমিক্স অন্য পৃথিবী’, অনিন্দ্য প্রকাশ থেকে মাসুদা ভাট্টির ‘মেয়েটি কখনো কোন কৃষককে ভালোবাসেনি’, অনন্ত হীরার ‘নাটক ত্রয়ী’, অনুপম প্রকাশনী থেকে মোরশেদ শফিউল হাসানের ‘গল্প সমগ্র’, ভাষা প্রকাশ থেকে আবুল কাশেম ফজলুল হকের ‘যুগল ক্রান্তি ও নীতি জিজ্ঞাসা’, অন্যপ্রকাশ থেকে হাসান আজিজুল হকের ‘ছোবল’, অ্যাডর্ন থেকে রেজাউল করিম খোকনের ‘বোম্বে কলকাতার ঝড় তোলার নায়িকারা’, ন্যাশনাল পাবলিকেশন থেকে ডা. জুবাইদা আখতারের ‘যত্নে রাখুন যকৃত’, রিদম প্রকাশনা সংস্থা থেকে লুৎফর চৌধুরীর ‘আয়লান’, গতিধারা থেকে একই লেখকের কাব্যগ্রন্থ ‘শৈলচূড়ায় নীড় বেঁধেছি’।

মোড়ক উন্মোচন : বৃহস্পতিবার মেলার মোড়ক উন্মোচন মঞ্চে প্রবাসী শিল্পী সায়ান রায়ের চিত্রকর্ম নিয়ে প্রকাশিত বইয়ের মোড়ক উন্মোচিত হয়। সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার, শিল্পী শিশির ভট্টাচার্য, লেখক আনিসুল হক, ত্রপা মজুমদার আনুষ্ঠানিকভাবে বইটির মোড়ক উন্মোচন করেন।

এ সময় শিল্পীসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন। বইটি পাওয়া যাবে ‘থিয়েটার’র স্টলে। এ ছাড়াও আরও ২৮টি নতুন বইয়ের মোড়ক উন্মোচিত হয়েছে।

মূলমঞ্চের আয়োজন : বৃহস্পতিবার গ্রন্থমেলার মূলমঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় ‘সত্তর দশকের কবিতা’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কবি মুজিবুল হক কবীর। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন কবি ইকবাল হাসান এবং ড. খালেদ হোসাইন। সভাপতিত্ব করেন কবি অসীম সাহা।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম