সংবাদ শিরোনাম

 

শফিউর রহমান সেলিম,ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম : একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় গফরগাঁওয়ের ১১ জনের বিরুদ্ধে তদন্তের চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থা।

আসামিদের মধ্যে গ্রেফতারকৃত ৫ জন হলেন- ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার পাগলা থানার নিগুয়ারী ইউনিয়নের সাধুয়া গ্রামের মো. খলিলুর রহমান (৬২), একই গ্রামের মো. সামসুজ্জামান ওরফে আবুল কালাম (৬৫), একই গ্রামের মো. আব্দুল্লাহ (৬২), মো. রইছ উদ্দিন আজাদী ওরফে আক্কেল আলী (৭৪) এবং ভালুকা উপজেলার রাজৈ ইউনিয়নের খুর্দ্দ পনাশাইল গ্রামের মো. আবদুল মালেক আকন্দ ওরফে আবুল হোসেন ওরফে আবুল মেম্বার (৬৮)। পলাতক ছয়জন আসামির বিরুদ্ধে শিগগিরই ট্রাইব্যুনালে প্রসিকিউশনের মাধ্যমে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির আবেদন জানানো হবে বলে জানিয়েছেন তদন্ত সংস্থা।

আসামিদের বিরুদ্ধে হত্যা, লুণ্ঠন, অগ্নিসংযোগ, অপহরণ, আটক, নির্যাতন ও মুক্তিপণ আদায়ের চারটি মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ আনা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে ৪ জনকে হত্যা, ৯ জনকে আটক ও নির্যাতনের অভিযোগ। একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁও উপজেলার পাগলা থানার নিগুয়ারী ইউনিয়নের সাধুয়া গ্রাম ও টাঙ্গাব ইউনিয়নের রৌহা গ্রাম এলাকায় তারা এসব অপরাধ করেন বলেও অভিযোগে বলা হয়েছে।

সোমবার রাজধানীর ধানমন্ডিতে তদন্ত সংস্থার কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার ৪৮তম এ তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেন সংস্থার প্রধান সমন্বয়ক আবদুল হান্নান খান ও তদন্তকারী কর্মকর্তা মনোয়ারা বেগম। আব্দুল হান্নান খান জানান, ৬ খন্ডে ৭৫ পৃষ্ঠা করে মোট ৪৫০ পৃষ্ঠার তদন্ত প্রতিবেদনটি শিগগিরই প্রসিকিউশনের কাছে জমা দেওয়া হবে।

এর ভিত্তিতে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ (ফরমাল চার্জ) তৈরি করে ট্রাইব্যুনালে দাখিল করা হবে। আসামিদের বিরুদ্ধে ২০১৪ সালের ১৬ অক্টোবর থেকে তদন্ত শুরু করে গত ১৬ ফেব্রুয়ারি শেষ হয়। ৬০ জনের জবানবন্দি নেওয়া হলেও একজন তদন্তকারী কর্মকর্তা ও জব্দ তালিকার দু’জনসহ মোট ৩১ জন সাক্ষী সাক্ষ্য দেবেন। গ্রেফতারকৃত আসামিদের মধ্যে সামসুজ্জামান ও মো. রইছউদ্দিন আজাদী জামায়াত, মো. আবদুল মালেক বিএনপি ও মো. খলিলুর রহমান জাতীয় পার্টির সক্রিয় সমর্থক।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম