সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : উৎসব আর উপলক্ষের দিনগুলো পেরিয়ে গেছে অমর একুশে গ্রন্থমেলা। দর্শনার্থীদের ভিড় গেছে কমে, এখন শুধুই পাঠক-ক্রেতাদের ভিড় মেলা প্রাঙ্গণে। হাতে বইয়ের তালিকা নিয়ে স্টল থেকে স্টলে ঘুরে পছন্দের বই সংগ্রহ করছেন অনেক ক্রেতা।

মিরপুর থেকে বইমেলায় এসেছেন বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থী জোহরা। তিনি বলেন, ২১শে ফেব্রুয়ারির দিনও এসেছিলাম মেলায়, তবে ঘুরে গিয়েছি সেদিন। অত ভিড়ের ভেতর বই কিনতে ইচ্ছে হয়নি। আজ ঘুরে ঘুরে বই কিনবো।

ইত্যাদি প্রকাশনীর প্রকাশক আদিত্য অন্তর বলেন, উৎসবের দিনগুলোতে ভিড় বেশি হয় ঠিকই। কিন্তু বিক্রি হয় অন্য দিনগুলোতে। মেলার শেষ দিনগুলোতে বিক্রি স্বাভাবিকভাবেই বেড়ে যায়। অনেকেই এই শেষ দিনগুলোর জন্যে অপেক্ষা করেন।

ধানমন্ডি থেকে আসা চাকরিজীবী রাহুল বলেন, মেলার মাঝামাঝি সময়ে আসলে সব বই পাওয়া যায় না। তবে ২১ ফেব্রুয়ারির মধ্যে উল্লেখযোগ্য বইগুলো চলে আসে। তাই এরপর থেকেই কেনা শুরু হয়।

এবারের মেলায় ‘আমাদের দিনরাত্রি’ নামে উপন্যাস প্রকাশ হয়েছে রিপন ইমরানের। তরুণ এই লেখক  বলেন, আমার নিজের বইও এসেছে দেরিতে। বইগুলো প্রকাশ হতে হতে মেলার শেষ দিক চলে আসে। তাই মেলার প্রথম দিকে এলে সব প্রকাশনা পাওয়া যায় না। যেটা শেষের দিকে পাওয়া যায়।

শুক্রবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল থেকেই মেলায় মানুষের ভিড় দেখা যায়। সকালে শিশু প্রহরে শিশুদের উপস্থিতিও ছিল লক্ষণীয়। বাবা-মার হাত ধরে স্টল থেকে স্টলে ঘুরে বেরিয়েছে শিশুরা। সকালে সিসিমপুরের পাপেট শোতে শিশুদের ছিল উপচেপড়া ভিড়। এরপর বই হাতে নিয়েই মেলা ছেড়েছে তারা।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম