সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : দীর্ঘ হচ্ছে সড়ক দুর্ঘটনায় লাশের মিছিল। প্রতিদিনই দেশের কোথাও না কোথাও মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনা ঘটছে। এতে ঝরে যাচ্ছে হাজারও প্রাণ। মৃত্যু থেকে বাদ পড়ছে না কোমলমতি শিশুও। এসব দুর্ঘটনায় অনেকে পঙ্গু হয়ে যাচ্ছেন। পঙ্গু-আহতদের কান্নায় ভারি হচ্ছে হাসপাতালের পরিবেশ। সর্বশেষ রাজধানী ঢাকাসহ ছয় জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় আটজন নিহত হয়েছেন। সোমবার বিকাল থেকে মঙ্গলবার বিকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টার এসব দুর্ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে গত ১৯ দিনে সারা দেশে সড়কে প্রাণ গেল ১৯২ জনের। এর মধ্যে সোমবার আট জেলায় নয়জন এবং রোববার তিন জেলায় তিনজন সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারান। সড়কে মৃত্যুর মিছিল যেন থামছেই না। কিন্তু এর বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নিতে গেলেই পরিবহন শ্রমিকরা আন্দোলনে নামছেন। বিক্ষোভ-ধর্মঘটের মাধ্যমে দেশ অচল করে দিচ্ছেন। তাদের কাছে যেন সবাই অসহায়! সংশ্লিষ্টরা জানান, জনস্বার্থে কিংবা সড়ক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সরকারের নেয়া সিদ্ধান্তগুলোর বাস্তবায়ন আটকে গেছে পরিবহন মালিক-শ্রমিক সংগঠনগুলোর আন্দোলনের কারণে। গত আট মাসে সারা দেশে অন্তত ২০ বার ধর্মঘট ডেকেছে এসব সংগঠন।

গত ২৪ ঘণ্টায় ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে গাড়িচাপায় এক ইউপি সদস্যসহ দু’জন, যাত্রাবাড়ীতে কাভার্ডভ্যান চাপায় ভ্যানচালক, বাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় ছাত্রলীগ নেতার মোটরসাইকেল চাপায় বৃদ্ধ, নওগাঁর মান্দায় ট্রাপচাপায় মাদ্রাসা সুপার, ফরিদপুরের ভাঙ্গায় শিশু, নাটোরের বড়াইগ্রামে ট্রাকচালক ও সাতক্ষীরার তালায় ট্রুলিচালক প্রাণ হারিয়েছেন।

তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, ১০ ফেব্রুয়ারি ফরিদপুরের নগরকান্দায় এক ভয়াবহ সড়ক দুর্ঘটনায় ১৩ জন অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যান, আহত হন ৩৩ জন। একটি যাত্রীবাহী বাসের সঙ্গে গ্যাস সিলিন্ডার ভর্তি কাভার্ডভ্যানের সংঘর্ষে এই মর্মবিদারী হতাহতের ঘটনা ঘটে। ১১ ফেব্রুয়ারি সারা দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় আরও ১২ জন নিহত ও ৪২ জন আহত হন। ১২ ফেব্রুয়ারি নরসিংদীতে বাস ও মাইক্রোবাসের সংঘর্ষে ১২ জনের মৃত্যু হয়, আহত হন ৩০ জন। একই দিনে ঢাকা ও সাভারে পৃথক দুর্ঘটনায় আরও দু’জনের মৃত্যু হয়।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সড়ক মহাসড়কে চালকদের বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানোই সড়ক দুর্ঘটনার অন্যতম প্রধান কারণ। উল্লিখিত দুর্ঘটনাগুলোর ক্ষেত্রেও সেটা লক্ষ করা গেছে। তারা বলেন, চালকদের বড় অংশই অদক্ষ, অপ্রশিক্ষিত, লাইসেন্সবিহীন, প্রতিযোগিতাপ্রবণ এবং ট্রাফিক আইন অমান্যকারী। ফলে সড়কে রোজ এ ধরনের দুর্ঘটনা ঘটছে।

পুলিশের হিসাবে প্রতি বছর সড়ক দুর্ঘটনায় গড়ে দুই থেকে তিন হাজার মানুষ মারা যান। বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির হিসাবে এ সংখ্যা ছয় থেকে সাত হাজার। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘অ্যাকসিডেন্ট রিসার্চ ইন্সটিটিউট’-এর তথ্যমতে, সড়কে বছরে দেশে ১২ হাজার থেকে ১৪ হাজার মানুষের প্রাণ যায়। আর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার জড়িপে তো সেই সংখ্যা আরও বেশি। সংস্থাটির তথ্য মতে, বাংলাদেশে বছরে ২০ হাজারেরও বেশি মানুষ সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান। সড়কে দুর্ঘটনা কমানোর উপায় জানতে চাইলে বাস মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন সমিতির সভাপতি এবং স্থানীয় সরকার ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, মালিক হিসেবে আমিও চাই সড়ক দুর্ঘটনায় বিচার হোক। তবে বিচারে বাস্তবতা থাকতে হবে। দুর্ঘটনার জন্য চালক নাকি পথচারী নাকি নছিমন-করিমন ভটভটির মতো ছোট গাড়ি দায়ী তা আগে বের করতে হবে। সড়ক দুর্ঘটনা হলেই চালককে দায়ী করে সাজা দিলে দুর্ঘটনা কমবে না।

এ প্রসঙ্গে নিরাপদ সড়ক চাই-নিসচার চেয়ারম্যান ও চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, সড়ক দুর্ঘটনার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে পরিবহন শ্রমিকরা ধর্মঘটের নামে শক্তি প্রদর্শন করে শাস্তি কমানোর চেষ্টা করে থাকে। ১৯৮৩ সালেও আইনে সড়ক দুর্ঘটনা জামিন অযোগ্য ও ১০ বছরের সাজার বিধান ছিল। পরিবহন শ্রমিকদের প্রতিবাদের নামে শক্তি প্রদর্শনের ফলে এ সাজা কমিয়ে দেয়া হয়। তিনি বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় আগে সাজা ছিল ১০ বছর, এরপর কমিয়ে সাজা করা হয় পাঁচ বছর। এখন সাজা আছে তিন বছর। শ্রমিকরা বিদ্যমান আইনে সাজা কমানোর দাবিতে আন্দোলন করছেন। দুর্ঘটনায় মানুষ মারা যাবে অথচ শাস্তি দেয়া যাবে না, শ্রমিকদের এ ধরনের দাবির যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন তিনি। নন্দিত চলচ্চিত্র পরিচালক তারেক মাসুদ ও সাংবাদিক মিশুক মুনীরসহ পাঁচজনের প্রাণহানির ঘটনায় সম্প্রতি ঘাতক বাসচালক জামির হোসেনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন নিন্ম আদালত। এ রায়ের বিরুদ্ধে গত রোববার থেকে খুলনা বিভাগের ১০ জেলায় ধর্মঘট চলছে। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের খুলনা বিভাগীয় আঞ্চলিক কমিটি এ ধর্মঘটের ডাক দেয়। এই সংগঠনটি জামির হোসেনকে ২০১১ সালে গ্রেফতার করার পর তার মুক্তির দাবিতে সারা দেশে পরিবহন ধর্মঘট পালন করে। এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ যাত্রীকল্যাণ সমিতির মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, পুলিশ প্রতিবেদন অনুযায়ী, এসব দুর্ঘটনার বেশির ভাগই ঘটছে চালকের বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানোর কারণে। এসব চালকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে গেলেই কর্মবিরতিসহ নানা কর্মসূচিতে মাঠে নামছে কিছু পরিবহন শ্রমিক। তাহলে কী তারা গাড়িচাপা দিয়ে মানুষ হত্যাকে বৈধতা দিতে চায়? তবে শ্রমিকদের সংগঠন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ওসমান আলী বলেন, সড়ক দুর্ঘটনার মামলায় প্রতিদিন কোনো না কোনো আদালতে চালকের বিচার হচ্ছে, সাজা হচ্ছে। আমরা ওই সাজা নিয়ে প্রশ্ন তুলি না। কিন্তু যখন সড়ক দুর্ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত নয় এমন ধারায় বিচার করা হয়, তখনই শ্রমিকেরা ক্ষুব্ধ হন। কর্মসূচি দেন।
 
২৪ ঘণ্টায় ৬ জেলায় ৮ জন নিহত : রাজধানী ঢাকাসহ ছয় জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় আটজন নিহত হয়েছেন। সোমবার বিকাল থেকে মঙ্গলবার বিকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় এসব দুর্ঘটনা ঘটে। একই সময়ে সেনবাগ, লক্ষ্মীপুর, যশোরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে আহত হয়েছেন অন্তত ৩৪ জন। সড়কে মৃত্যুর মিছিল যেন থামছেই না।

বিস্তারিত ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে-
যাত্রাবাড়ীর কাজলা ফাতেমা পেট্রুলপাম্পের সামনের রাস্তায় মঙ্গলবার ভোরে কাভার্ডভ্যান চাপায় পিকআপ চালক ইমরান হোসেন (২২) নিহত হয়েছেন। পিকআপ ভ্যানের মালিক আবদুস শহীদ জানান, ইমরান পিকআপ ভ্যান নিয়ে ফাতেমা ফিলিংস্টেশনের সামনে এলে একটি চাকা নষ্ট হয়ে যায়। রাস্তায় পিকআপ ভ্যান দাঁড় করিয়ে চাকা মেরামত করছিলেন ইমরান। এ সময় পেছন দিক থেকে আসা একটি কাভার্ডভ্যান তাকে চাপা দেয়। এতে তিনি গুরুতর আহত হন।

ঈশ্বরগঞ্জ : ঈশ্বরগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার রুকনুজ্জামান জানান, সোমবার রাত ২টার দিকে ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কের ঈশ্বরগঞ্জের ছোট উত্তমপুর নামক স্থানে একটি মোটরসাইকেলকে চাপা দেয় একটি গাড়ি। এতে মোটরসাইকেল আরোহী মাইজবাগ ইউপি সদস্য মরতুজ আলী (৫০) ও তার সঙ্গী শাহীন নিহত হন।
 
আখাউড়া : বিজয়নগর উপজেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন শেষে সোমবার বিকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রলীগের নেতারা বেপরোয়া গতিতে মোটরসাইকেল চালিয়ে যাচ্ছিলেন। এ সময় আখাউড়া পৌর শহরের দুর্গাপুর মাজার গেট এলাকায় জেলা ছাত্রলীগ নেতা জোবায়ের আহম্মেদের মোটরসাইকেলের নিচে চাপা পড়েন বৃদ্ধ ইদন খাঁ (৮০)। তাকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় তার মৃত্যু হয়। ইদনের বাড়ি আখাউড়া পৌরশহরের দুর্গাপুর পূর্বপাড়ায় বলে জানা গেছে।
 
নওগাঁ : নওগাঁ-রাজশাহী মহাসড়কের মান্দা উপজেলার বিজয়পুর মোড়ে মঙ্গলবার দুপুরে পিকআপ চাপায় নিহত হন মোটরসাইকেল আরোহী হাসান আলী (৪৫)। তিনি উপজেলার জামদই গ্রামের মৃত অছির উদ্দিনের ছেলে। তিনি স্থানীয় একটি মাদ্রাসার সুপার।
 
ভাঙ্গা : ফরিদপুর-বরিশাল মহাসড়কের ভাঙ্গার জদুরদিয়া নামক স্থানে মঙ্গলবার বিকালে ইজিবাইক ও মিনি ট্রাকের সংঘর্ষে ইজিবাইক যাত্রী শিশু নিহত এবং আরও পাঁচজন আহত হন। নিহত ফারজিন শরীফ (৬) ভাঙ্গার বড়বাড়ি কান্দা গঙ্গাদরদী গ্রামের কাইয়ুম শরীফের ছেলে।

বড়াইগ্রাম : নাটোর-পাবনা মহাসড়কের কদিমচিলান এলাকায় মঙ্গলবার ভোরে ফারুকের মিনি ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয় নাটোর থেকে পাবনাগামী মাল বোঝাই ট্রাকের (নম্বর ঢাকা-মেট্রো-ট-১১-৯৯১৮)। এতে ফারুক ঘটনাস্থলেই নিহত হন। আহত হন জুয়েল ও বিপ্লব নামে আরও দু’জন। ফারুক ঈশ্বরদী থানার সারা কাউদিয়া এলাকার বাবু দেওয়ানের ছেলে।

সাতক্ষীরা : তালা সরকারি কলেজের কাছে মঙ্গলবার দুপুরে মাটিবোঝাই ট্রুলির সঙ্গে নছিমনের সংঘর্ষ হয়। এতে ট্রুলিচালক আকিমুদ্দিন নিহত হন।

সেনবাগ : নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার সেনবাগ-সোনাইমুড়ী সড়কে যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে অন্তত ২০ যাত্রী আহত হয়েছেন। সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে ফকিরহাট এলাকার ভূইয়া বাড়ির সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। তাৎক্ষণিকভাবে আহতদের নাম পরিচয় জানা যায়নি।

লক্ষ্মীপুর : লক্ষ্মীপুর-রামগতি সড়কের মিয়ারবেড়ি এলাকায় মঙ্গলবার দুপুরে যাত্রীবাহী লেগুনা নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশে গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে পাঁচ যাত্রী আহত হয়েছেন। তারা হলেন- ফয়সাল, মুজিব, আমজাদ, নাছির এবং অপর একজনের পরিচয় জানা যায়নি।
 
যশোর : যশোর-বেনাপোল সড়কের নতুনহাট এলাকায় মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে ভাড়ায়চালিত মোটরসাইকেলের সঙ্গে প্রাইভেটকারের (নম্বর-ঢাকা-মেট্রো-খ-১২-৮৫৮৬) সংঘর্ষে মোটরসাইকেল আরোহী দু’জন আহত হয়েছেন। তারা হলেন ইকবাল হোসেন ও শতীল কুমার। তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম