সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : দীর্ঘ বিরতির পর অবশেষে মালয়েশিয়ায় গেল বাংলাদেশের  শ্রমিক। ‘জিটুজি প্লাস’ পদ্ধতিতে বাংলাদেশের ৯৮  জন শ্রমিকের প্রথম দলটি শুক্রবার মালয়েশিয়ার উদ্দেশে ঢাকা ছাড়ে।

শুক্রবার রাত সাড়ে নয়টায় হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বিজি-০৮৬ ফ্লাইটে তারা মালয়েশিয়ার উদ্দেশে রওনা দেন।  তাদের সঙ্গে রয়েছেন জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) ছয়জন কর্মকর্তা।

মালয়েশিয়াগামী ৯৮ কর্মীকে বিমানবন্দরে বিদায় জানান প্রবাসী কল্যাণ সচিব বেগম শামছুন্নাহার।  এ সময় বিএমইটির মহাপরিচালক সেলিম রেজাসহ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা সেখানে উপস্থিতি ছিলেন।

এর আগে মন্ত্রণালয় থেকে ১০২ জনের মালয়েশিয়া যাওয়ার কথা বলা হয়েছিল। তবে বিমানবন্দরে প্রবাসী কল্যাণ ডেস্ক থেকে জানানো হয় চারজনের  আঙুলের ছাপে গরমিল হওয়ায় তাদের অফলোড করা হয়েছে।

সার্ভিস সেক্টরের আওতায় কুয়ালালামপুর বিমানবন্দরে ‘কার্গো লাডার’পদে নিয়োগ পেয়েছেন এসব বাংলাদেশি শ্রমিক। মার্চের মধ্যে পর্যায়ক্রমে আরও ৩০০ কর্মীর ওই দেশে যাওয়ার কথা রয়েছে বলে বিএমইটির কর্মকর্তারা জানান। এসব শ্রমিক বিএমইটি থেকে বহির্গমনের স্মার্টকার্ডও পেয়েছেন বলে সূত্র জানায়।

বিএমইটি টেকনিক্যাল প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে (টিটিসি) বুধবার এ কর্মীদের ওরিয়েন্টেশন প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। এতে বিমানবন্দরের আনুষ্ঠানিকতা থেকে শুরু করে মালয়েশিয়ায় নতুন কর্মস্থল সম্পর্কে একটি সম্যক ধারণা দেয়া হয়। এ গ্রুপে যাওয়া প্রত্যেক কর্মী মাসে এক হাজার ৫০০ মালয়েশীয় রিংগিত (২৭ হাজার টাকা) করে বেতন পাবেন।

২০০৯ সাল থেকে অন্যতম শ্রমবাজার মালয়েশিয়া বাংলাদেশ থেকে কর্মী নেয়া বন্ধ করে। দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর ২০১৩ সালে জিটুজি (গভর্নমেন্ট টু গভর্নমেন্ট) পদ্ধতিতে আবার বাংলাদেশ থেকে জনশক্তি নিতে শুরু করে দেশটি। সে প্রক্রিয়া যথেষ্ট কার্যকর না হওয়ায় পরে মালয়েশিয়া সরকার পাঁচটি খাতে সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ের সমন্বয়ে ‘জিটুজি প্লাস’পদ্ধতিতে বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিতে রাজি হয়। দুই দেশের মধ্যে এ বিষয়ে চুক্তি হয় গত বছরের ১৮ ফেব্রুয়ারি। কিন্তু চুক্তির পরদিনই মালয়েশিয়া সরকার বিদেশি কর্মী নেয়া বন্ধ ঘোষণা করে। কয়েক মাস আগে বিদেশি কর্মী না নেয়ার ঘোষণাটি প্রত্যাহারের পর জিটুজি প্লাস চুক্তির আলোকে কর্মী নিয়োগের বিষয়টি আবার সামনে আসে।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম