সংবাদ শিরোনাম

 

ক্রীড়া প্রতিবেদক : রাত পোহালেই নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসে শততম টেস্টের উপলক্ষ নিয়ে মাঠে নামবে বাংলাদেশ দল। ঐতিহাসিক ম্যাচে টাইগারদের সামনে গল টেস্টের হতাশা ভুলে ঘুরে দাঁড়ানোর চ্যালেঞ্জ। ম্যাচটি স্মরণীয় করে রাখতে দৃঢ় প্রত্যয়ী মুশফিক-সাকিব-তামিম-মোস্তাফিজরা।

আইসিসির কাছ থেকে টেস্ট মর্যাদা পাওয়ার পর থেকে আজ অব্দি ৯৯টি টেস্ট খেলেছে টিম বাংলাদেশ। বুধবার (১৫ মার্চ) কলম্বোর পি সারা ওভালের ম্যাচটি দিয়ে শততম টেস্টের মাইলফলক স্পর্শ করবে লাল-সবুজের ক্রিকেট।

আর এই ম্যাচটিকে সামনে রেখে যে চাপের মুখোমুখি হয়েছে টাইগাররা তা বোধ হয় বিগত ১৬ বছরে কোন টেস্ট ম্যাচেই হয়নি। ফলে মাইলফলকস্পর্শকারী এই ম্যাচটিকে সামনে রেখে একাদিক চ্যালেঞ্জের মোকাবেলা করতে হচ্ছে টাইগারদের।

চ্যালেঞ্জগুলোর মধ্যে প্রথমটি হলো মানসম্মত খেলার চাপ। যেহেতু শততম টেস্ট; তাই এই ম্যাচটিকে সামনে রেখে বাংলাদেশ দলের টিম ম্যানেজমেন্ট থেকে শুরু করে দেশের ক্রিকেট বোদ্ধা ও ভক্তদের প্রত্যাশার পারদ নিঃসন্দেহে অনেক উপরে থাকবে। দেশের মিডিয়ায়ও ম্যাচটিকে নিয়ে দারুণ এক ‘হাইপ’ সৃষ্টি হয়েছে।

অবশ্য কারণটিও সঙ্গত। ক্রিকেটে বাংলাদেশ আজ যে উচ্চতায় পৌঁছে গেছে সাকিব, তামিমদের কাছ থেকে ভালো খেলার প্রত্যাশা নিশ্চয়ই অমুলক কিছু নয়। ফলে প্রকাশ্যে না চাইলেও অবচেতন মনে মানসম্মত খেলার একটি তাগিদ তারা বোধ করবেনই।

দ্বিতীয়টি হলো সিরিজে ফেরার লড়াই। যেহেতু অনভিজ্ঞ ও বয়সে তরুণ একটি দলের কাছে সিরিজের প্রথম ম্যাচেই সফরকারীরা হেরে বসেছে সেহেতু এই ম্যাচে যে জয় নিয়ে সিরিজে ফিরতে মরিয়া হয়ে খেলবেন একথা বলার কোন অপেক্ষাই থাকছে না। জয় না হোক ড্র করতেই হবে; এমন মানসিকতা নিয়ে মাঠে নামার চ্যালেঞ্জটিও দিন শেষে কিন্তু থেকেই যাচ্ছে।

আর তৃতীয়টি হলো, ভঙ্গুর মানসিকতা থেকে বেরিয়ে আসার। ফর্মহীনতার কারণ দেখিয়ে দলের সিনিয়র খেলোয়াড় মাহমুদু্ল্লাহ রিয়াদকে দ্বিতীয় টেস্ট থেকে বাদ দেয়ায় টাইগার ড্রেসিংরুমে যে অস্থিরতার সৃষ্টি হয়েছে সেটা কাটিয় উঠে ধীর স্থির মানসিকতা নিয়ে খেলার চ্যালেঞ্জটিও তাদের নিতে হচ্ছে!

ঠিক এমনই ত্রিমুখী চ্যালেঞ্জ নিয়ে দুই ম্যাচ সিরিজের শেষ ম্যাচে লঙ্কানদের মুখোমুখি হচ্ছে মুশফিকুর রহিম ও তার দল। খেলা শুরু বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ১০টায়। ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় গল টেস্টে ২৫৯ রানে হার মানতে হয়েছিল।

এখন দেখার বিষয় হলো, চ্যালেঞ্জগুলোকে লাল-সবুজের দল কতটা দক্ষতার সাথে নিতে পারে। সন্দেহ নেই কাজগুলো কঠিন কিন্তু অসম্ভব নয়। আর এই অসম্ভবকে সম্ভব করতে হলে দায়িত্বটা নিতে হবে ব্যাটসম্যানদেরই। যা তারা বিগত টানা চারটি টেস্টে নিতে পারেননি। যেটি দিন শেষে তাদের হারের গ্লানি ছাড়া আর কিছুই উপহার দিতে পারেনি।

মাইলফলকের ম্যাচটিকে স্মরণীয় করে রাখতে ব্যাটসম্যানদের পাশাপাশি বল হাতে জ্বলে উঠতে হবে বোলারদেরও। তামিম, মুশফিক ও সাকিবদের বড় পুঁজিকে সম্বল করে তাসকিন, মোস্তাফিজ, মিরাজরা বল হাতে গর্জে উঠলে সেই লক্ষ্যে অনেকটাই সফল হতে পারবে সফরকারী বাংলাদেশ।

চ্যালেঞ্জ থাকছে স্বাগতিক শিবিরেও। আরেকটি জয়ে ২-০ তে সিরিজ শেষ করতে চোখ রাখছে লঙ্কানরা। নাকি ঐতিহাসিক ম্যাচ দিয়ে সমতায় ফিরবে টিম বাংলাদেশ। সেই প্রত্যাশা বাংলাদেশের অগণিত ক্রিকেট সমর্থকদের। শততম টেস্টে টাইগারদের মাঠের পারফরম্যান্সে তাকিয়ে সবাই।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম