সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আসন্ন ভারত সফরেই তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তি হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি জানান, এই চুক্তি চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে।

বুধবার সকালে নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলার সরকারি কলেজ মাঠে এক অনুষ্ঠানে ওবায়দুল কাদের এ কথা বলেন।

বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে অমীমাংসিত যেসব সমস্যা নিয়ে গত কয়েক বছর ধরে সবচেয়ে বেশি সমালোচনা হচ্ছে, তার একটি তিস্তার পানিবণ্টন। ভারত এই নদী থেকে পানি প্রত্যাহার করায় উত্তরাঞ্চলের নীলফামারী, লালমনিরহাট, রংপুর, কুড়িগ্রামে পরিবেশের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। নদীতে পানি না থাকায় দেশের সবচেয়ে বড় সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারেজও প্রায় অকার্যকর হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে শুকনো মৌসুমে উত্তরাঞ্চলের বিরাট এলাকায় চাষাবাদে বিঘ্ন ঘটছে।

২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংএর ঢাকা সফরে তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তি হওয়ার সব প্রক্রিয়া চূড়ান্ত ছিল। কিন্তু শেষ মুহূর্তে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের আপত্তিতে আটকে যায় সে চুক্তি। মমতার দাবি, বাংলাদেশকে কেন্দ্রীয় সরকার যত পানি দেয়ার কথা বলছে, তত পরিমাণ পানি তিস্তায় আসে না। পশ্চিমবঙ্গের উজানে গজলডোবায় বাঁধ দিয়ে পানি প্রত্যাহার করে নেয়ায় পশ্চিমবঙ্গও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

এরপর গত সাড়ে পাঁচ বছরে তিস্তার পানিবণ্টর চুক্তি নিয়ে পর্দার আড়ালে অনেক চেষ্টাই হচ্ছে। আর এই চেষ্টার ফল মেলার অপেক্ষায় বাংলাদেশ। আগামী ৭ এপ্রিল চার দিনের সফরে ভারত যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ৮ এপ্রিল তিনি সে দেশের সরকার প্রধান নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে বৈঠক করবেন।

তিস্তা চুক্তি হলে ২০১১ সালে মমতা সে সময়ের কংগ্রেসের নেতৃত্বাধীন জোট সরকারের ওপর থেকে সমর্থন প্রত্যাহারের হুমকি দিয়েছিলেন। আর মমতা সমর্থন তুলে নিলে তখন সরকারের পতন ঘটতো। কিন্তু কেন্দ্রে  বিজেপির একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকায় এখন মমতা আর বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারবেন না বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরে তিস্তা চুক্তি হবে। এখানে গোপনীয়তার কিছু নেই।’ অবশ্য পানি বণ্টনে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে হিস্যা কত হবে সে বিষয়ে কিছু বলেননি কাদের।

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপিকে অংশগ্রহণের আহ্বানও জানান কাদের। তিনি বলেন, ‘আগামী সংসদ নির্বাচন শেখ হাসিনার অধীনেই অনুষ্ঠিত হবে। এবং সেই নির্বাচন হবে অবাধ ও নিরপেক্ষ।’ এ সময় নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে দলের নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম