সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক, রংপুর : আগামী সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নতুন রাজনৈতিক জোট গঠনে চলতি মাসেই সিদ্ধান্ত জানাবেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তিনি জানান, ২৫টি দলের সম্পৃক্ততা এরই মধ্যে নিশ্চিত হয়েছে। এদের মধ্যে ১৯টিই নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধিন।

শুক্রবার দুপুরে রংপুর পল্লীনিবাসে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন এরশাদ। তিনি আশা করেন, নির্বাচনী এই জোট জাতীয় পার্টিকে আবার রাষ্ট্রক্ষমতায় নিয়ে আসবে।
১৯৯০ সালে গণঅভ্যুত্থানে ক্ষমতা হারানো সাবেক এই সেনা শাসকের দাবি, বর্তমান সরকারের শাসনে দেশবাসী অসন্তুষ্ট। আর বিএনপি তার অতীত অন্যায় অত্যাচারের কারণে প্রত্যাখ্যাত। এ কারণে দেশবাসী তার দিকেই তাকিয়ে আছে এবং তিনি দেশবাসীকে মুক্তি দিতে চান।
দলের কর্মসূচিতে অংশ নিতে পাঁচ দিনের সফওে দুপুরে রংপুরে আসেন এরশাদ। শনিবার তিনি রংপুর পাবলিক লাইব্রেরি মাঠে রংপুর মহানগর জাতীয় পার্টিও সম্মেলনে যোগ দেবেন।

সকালে এরশাদ রংপুর আসার পর দলের নেতা-কর্মীরা তাকে স্বাগত জানান। এ সময় রংপুর জাতীয় পার্টির সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক এসএম ইয়াসির, দলের নির্বাহী কমিটির সদস্য কাউন্সিলর শাফিউল ইসলাম শাফিসহ স্থানীয় নেতৃত্বে উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় এরশাদ সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরাকরের আমলে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে বাজেয়াপ্ত করা অর্থ ফেরত দিতে উচ্চ আদালতের নির্দেশ দিয়ে কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘উচ্চ আদালত সরকারকে যে আদেশ দিয়েছেন তা সঠিক । এটা ভালো কাজ। কেননা তত্বাবধায়ক সরকারের আমলে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে জোর করে এ টাকা নেয়া হয়েছিলো।’

সুপ্রিম কোর্টের সামনে ন্যায়বিচারের প্রতীক হিসেবে  ভাস্কর্য স্থাপনেরও সমালোচনা করেন এরশাদ। তিনি বলেন, ‘আমি অন্য কোন দেশে হাইকোর্টের সামনে এই ধরনের ভাস্কর্য দেখিনি। তাছাড়া এটা গ্রিক আদলের ভাস্কর্য নয়, এটাতে শাড়ি পরানো আছে।’


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম