সংবাদ শিরোনাম

 

শেরপুর প্রতিনিধি : শেরপুরে স্বামীকে কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে হত্যার দায়ে আছমা বেগম (৪৩) নামের এক গৃহবধূকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। আসামিকে আরো ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ছয় মাসের কারাদণ্ডাদেশও দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে শেরপুরের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ মোসলেহ উদ্দিন এই দণ্ডাদেশ দেন। দণ্ডাদেশ পাওয়া আছমা বেগম শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার রামেরকুড়া গরুহাটি এলাকার বাসিন্দা।

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, ২০১৪ সালের ৩০ জুলাই সকালে ঘুমন্ত অবস্থায় স্বামী সৈয়দুর রহমান ফজুকে কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেন আছমা বেগম। আছমা ফজুর দ্বিতীয় স্ত্রী। প্রথম স্ত্রী হালিমার মৃত্যুর পর আছমাকে বিয়ে করেন ঠিকাদার ফজু। ২০ বছরের সংসার জীবনের প্রথম থেকেই দ্বন্দ্ব কলহ শুরু হয় ফজু-আছমার সংসারে। প্রথম পক্ষের চার ছেলে সন্তান থাকার পর আছমার গর্ভে আরেকটি মেয়ে জন্ম নিলে দ্বন্দ্ব কলহ আরো বেড়ে যায়।

আর এই দ্বন্দ্বের জের ধরেই হত্যার ঘটনা ঘটে।

ঘটনার দিনই পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হন আছমা। পরে ফজুর বড় ছেলে হারুন অর রশিদ বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করেন। আছমা হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম