সংবাদ শিরোনাম

 

ক্রীড়া ডেস্ক : শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজের সুখস্মৃতি ওয়ানডে সিরিজেও বাংলাদেশের সঙ্গী হবে তো? এমন প্রশ্ন যদি কারো মনে উঁকি দেয় তাহলে ওয়ানডের প্রস্তুতি ম্যাচে মাশরাফিবাহিনীর পারফরম্যান্স দেখে স্বস্তি পেতে পারেন তিনি। না, স্বাগতিক শ্রীলঙ্কান বোর্ড প্রেসিডেন্ট একাদশের দেওয়া ৩৫৫ রানের পাহাড়সম রানের টার্গেট উতরে যেতে পারেনি বাংলাদেশ। তবে সেটা মাত্র ৩ রানের জন্য! মাশরাফির লড়াকু দল দুরন্ত পারফরম্যান্স দেখিয়ে ৫০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ৩৫২ রান করেছে।

তামিম, সাকিব, মিরাজদের ছাড়াই এই ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। এরপরও ৩৫৪ রানের জবাবে ৩৫২ রান করে মাশরাফিবাহিনী যেন প্রমাণ করে দিল, বর্তমানে সাড়ে ৩০০ রানের টার্গেট তাড়া করাও বাংলাদেশের জন্য অসম্ভব নয়; বাংলাদেশ এখন বিশ্ব ক্রিকেটের দুরন্ত দল।

কলম্বোর মাঠে বুধবার (২২ মার্চ) এই প্রস্তুতি ম্যাচে মুখোমুখি হয় দুই দল। টস হেরে শুরুতে ব্যাট করতে নামে শ্রীলঙ্কান বোর্ড প্রেসিডেন্ট একাদশ।

শুরু থেকেই বাংলাদেশের বোলারদের ওপর চড়াও হয় স্বাগতিক ব্যাটসম্যানরা। ইনিংসের শেষ পর্যন্ত তাদের আক্রমণাত্মক ব্যাটিং থামাতে পারেনি বাংলাদেশের বোলাররা। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ৩৫৪ রানের সংগ্রহ দাঁড় করায় শ্রীলঙ্কান বোর্ড প্রেসিডেন্ট একাদশ। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৬৭ রান করেছেন সানদান ভিরাক্কদি। এ ছাড়া কুশাল পেরেরা ৬৪, ধনাঞ্জয় ডি সিলভা ৫২, থিসারা পেরেরার ৪১ রান ছিল উল্লেখযোগ্য।

বাংলাদেশের ৭ জন বোলারই ছিলেন খরুচে। এদের মধ্যে অধিনায়ক মাশরাফি, পেসার তাসকিন আহমেদ, আরেক পেসার আবুল হোসেন এবং স্পিনার সানজামুল ইসলাম একটি করে উইকেট পেয়েছেন।

এই ম্যাচে পেসার মুস্তাফিজুর রহমান, অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান, স্পিন অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজরা অবশ্য মাঠে নামেননি।

একই ভাবে এই ম্যাচে ব্যাট হাতে মাঠে নামেননি বাংলাদেশের ড্যাশিং ওপেনার তামিম ইকবাল। তাকে ছাড়া ৩৫৫ রানের বিশাল টার্গেট তাড়া করতে নেমে দলের ইনিংস ওপেন করতে নামেন ইমরুল কায়েস ও সৌম্য সরকার। কিন্তু বলেই আউট হয়ে যান ইমরুল। তবে সৌম্য ও ওয়ানডাউনে নামা সাব্বির রহমানের ব্যাটে শুরুর এই ধাক্কা সামলে উঠে বাংলাদেশ।

এ দু’জনে মিলে ১১৬ রানের পার্টনারশিপ গড়ে তোলেন। এরপর ব্যক্তিগত ৪১ রানে আউট হন সৌম্য। বাংলাদেশ তৃতীয় উইকেট হারায় ১২৪ রানে। এবার ব্যক্তিগত ৭২ রানে (৬৩ বলে) আউট সাব্বির রহমান। দলীয় ১৫২ রানে সাজঘরের পথ ধরেন মুশফিকুর রহীমও; ব্যক্তিগত ২০ রানে। ফলে জয়ের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে সেই মুহূর্তে সংগ্রাম করতে হয় বাংলাদেশকে। তবে তরুণ মোসাদ্দেক হোসেন ৫০ বলে ৫৩, অভিজ্ঞ মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ৬৮ বলে হার না মানা ৭১ রান এবং অধিনায়ক মাশরাফি ৩৫ বলে ৫৮ রান করে বাংলাদেশ শিবিরে আশার আলো জাগিয়ে তোলেন।

মাশরাফি যতক্ষণ ক্রিজে ছিলেন ততক্ষণ মনে হচ্ছি এই ম্যাচ বাংলাদেশ জিতে নিচ্ছে। তবে ৪৮.৩ ওভারে দলীয় ৩৪০ রানে অধিনায়ক আউট হয়ে গেলে স্বাগতিকদের দেওয়া টার্গেট ছোঁয়া সম্ভব হয়নি বাংলাদেশের পক্ষে। মাহমুদউল্লাহ ও মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন শেষ ৯ বলে ১২ রান সংগ্রহ করতে সক্ষম হন; ওই ৯ বলে বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিল ১৫ রান।

টেস্ট সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে ঐতিহাসিক এক জয় তুলে নিয়ে শ্রীলঙ্কার সঙ্গে ১-১ সমতায় মিশন শেষ করেছিল বাংলাদেশ। ওয়ানডে সিরিজেও যে বাংলাদেশের ‘বাঘ’ শ্রীলঙ্কার ‘সিংহ’কে ছেড়ে কথা বলবে না, বুধবারের প্রস্তুতি ম্যাচে যেন সেই বার্তাই দিয়ে রাখলেন মাশরাফিরা।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম