সংবাদ শিরোনাম

 

বিশেষ প্রতিবেদক : নিম্নচাপের প্রভাবে টানা বৃষ্টির পর আবহাওয়ার উন্নতি হয়েছে। রোববার সকালে দেখা মিলেছে সূর্যের। ফলে জনজীবনে স্বস্তি বিরাজ করছে।

এর আগে টানা তিন দিনের বৃষ্টিতে দুর্ভোগে পড়েছিল ঢাকাসহ সারাদেশের মানুষ। বিশেষ করে শিক্ষার্থী ও কর্মজীবীদের বেশি দুর্ভোগে পড়তে হয়। বৃষ্টির সঙ্গে জলাবদ্ধতার কারণে বিপর্যস্ত হয় জনজীবন।

তবে শনিবার দুপুরের পর বৃষ্টির প্রকোপ কমতে থাকে এবং পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করে। রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে কমতে শুরু করেছে জলাবদ্ধতাও। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপ দুর্বল হয়ে গেছে। এটি ক্রমশঃ দুর্বল হয়ে সিলেট বিভাগ দিয়ে অতিক্রম করছে।

আবহাওয়ার উন্নতি হওয়ায় সারা দেশে নৌ চলাচলে বিধিনিষেধ তুলে নিয়েছে অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)। রাজধানী থেকে দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার প্রবেশদ্বার শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটে ফেরি পারাপার শুরু হয়েছে।

এর আগে বিরূপ আবহাওয়ার কারণে শুক্রবার থেকে নৌ চলাচলে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছিল। পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় রোববার সকাল পৌনে ৭টা থেকে সব ধরনের নৌ চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে বিআইডব্লিউটিএ।

বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপ সৃষ্টি হওয়ার পর তা স্থলভাগে উঠে এলে তার প্রভাবে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃহস্পতিবার থেকে বৃষ্টি শুরু হয়। বিরূপ আবহাওয়ায় সাগর উত্তাল থাকায় দেশের সমুদ্র বন্দরগুলোকে তিন নম্বর সতর্কতা সংকেত এবং নৌ বন্দরে দুই নম্বর নৌ হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়।

এখন আবহাওয়ার উন্নতি হওয়ায় রোববার ভোর ৬টা থেকে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ও মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ি ঘাট দিয়ে ফেরি, লঞ্চ ও স্পিডবোট দিয়ে পদ্মা পারাপারও শুরু হয়েছে। শিমুলিয়ার ২ ও ৩ নম্বর ঘাট দিয়ে ফেরি চলাচল করছে।

এদিকে আজ সকালে আকাশ মেঘাচ্ছন্ন থাকলেও আগামী ২/৪ দিনের মধ্যে বৃষ্টিপাতের তেমন সম্ভাবনা নেই বলে আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা গেছে। আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে শনিবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ঢাকায় ১৫৮ মি.মি. বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। এসময়ে সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে ফেনীতে ৩০৬ মি.মি.।

এছাড়া টাঙ্গাইলে ২০৬, নিকলীতে ২১৫, ময়মনসিংহে ১৪৫, সন্ত্বীপে ১৩৭, কুমিল্লায় ১৮৬,  সিলেটে ৪৯, রাজশাহীতে ৭৬, রংপুরে ৮৩, খুলনায় ৯৬ ও বরিশালে ১৪১ মি.মি. বৃষ্টিপাত রেকর্ড হয়েছে।

রোববার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরসমূহকে সতর্ক সংকেত নামিয়ে ফেলতে বলা হয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত সকল মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে আজ সন্ধ্যা পর্যন্ত সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।

আজ সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত আবহাওয়ার পূর্বাভাসে আরো বলা হয়েছে- সিলেট, ময়মনসিংহ, ফরিদপুর, কুমিল্লা, নোয়াখালি, চট্টগ্রাম এবং কক্সবাজার অঞ্চল সমূহের উপর দিয়ে দক্ষিন/দক্ষিনপুর্ব দিক থেকে ঘন্টায় ৪৫-৬০ কি.মি. বেগে অস্থায়ীভাবে দমকা/ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি/বজ্রবৃষ্টি হতে পারে। এসব এলাকার নদীবন্দর সমূহকে এক নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা (২-৪) ডিগ্রী সেলসিয়াস বৃদ্ধি পেতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা (১-২) ডিগ্রী সেলসিয়াস বৃদ্ধি হতে পারে।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম