সংবাদ শিরোনাম

 

শফিউর রহমান সেলিম, ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম : ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে মলম পাটিৃর খপ্পরে রেহেনা(১৩)নামে এক পোশাকর্কমীর শ্লীলতাহানী ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাটি ঘটে গতকাল রবিবার রাতে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা জামালপুরগামী কমিউটার ট্রেনে। পরে সুরুজ নামে এক ট্রেন যাত্রী রাত ১১টায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে রেখে যায়। আজ সোমবার দুপুরে তার জ্ঞান ফিরলেও নিজের নাম ছাড়া আর কোন কিছু বলতে পারেনি।
হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, গতকাল রবিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে সুরুজ মিয়া নামে এক ব্যক্তি অজ্ঞান অবস্থায় এই তরুনীকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে নিয়ে গেলে রাত ১১টার দিকে কর্তব্যরত ডাক্তার ভর্তি করান।
আজ সোমবার দুপুর আড়াইটার দিকে তরুনীর জ্ঞান ফিরলেও সে নিজের নাম রেহেনা ছাড়া, পিতা মাতার নাম, গ্রামের ঠিকানা মনে করতে পারছিল না। তবে অস্পষ্ট স্বরে তরুণী জানায় সে শ্রীপুরের মাওনা শাহজাহান টেক্সটাইলে চাকুরী করে এবং ফারুক নামে এক জনের বাসায় থাকে। গতকাল রবিবার ছুটির পর বাসায় ফিরার পথে কয়েকজন লোক তাকে সিএজি দিয়ে রাস্তা থেকে তোলে নিয়ে যায় এর বেশী কিছু মনে করতে পাছেনা।
সুরুজ মিয়ার মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি ঢাকা থেকে কমিউটার ট্রেনে গফরগাঁও আসছিলাম। ট্রেনের কামরার ভিতর অজ্ঞান অবস্থায় তরুনীকে পরে থাকতে দেখে অন্য যাত্রীদের অনুরোধে ও গফরগাঁও ষ্টেশনে নামিয়ে রাখি। পরে তার সাথে নগত টাকা ও মোবাইল ফোনসহ কোন ঠিকানা না পাওয়ায় গফরগাঁও উপজেরা হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করি।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের ডাক্তার জহির বলেন, মনে হয় মেয়েটিকে নেশা জাতীয় কিছু খাওয়ানো হয়েছিল। নেশার মাত্রা বেশী থাকায় জ্ঞান ফিরতে অনেক সময় লেগেছে।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম