সংবাদ শিরোনাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : এতিমখানা দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া নির্দোষ প্রমাণ হলেই আওয়ামী লীগ খুশি হবে বলে জানিয়েছেন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ। তিনি বলেন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতিতে জড়িত বলে প্রমাণ হলে বাংলাদেশেরই ভাবমূর্তি নষ্ট হবে।

শুক্রবার রাজধানীতে ইউনাইটেড ইসলামী পার্টির এক আলোচনা ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতি‌থির বক্তব্যে এমন মন্তব্য করেন হানিফ।

‌খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্য করে হানিফ বলেন, ‘আপ‌নি য‌দি নিজেকে নির্দোষ ভাবেন তাহলে দ্রুত হেয়া‌রিং করে শেষ ক‌রে দেন। তথ্য প্রমাণ দিয়ে প্রমাণ করে দেন যে আপ‌নি অপরাধের সাথে সম্পৃক্ত নন। এতে যেমন আপনার দলের নেতা কর্মীরা খু‌শি হবে, আমরাও খুশি হব। অন্তত দেশের ভাবমূ‌র্তি ভালো থাকবে।’

বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে পুরান ঢাকার বকশিবাজারে চলা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা প্রায় শেষ পর্যায়ে। এই মামলায় এখন খালেদা জিয়া আত্মপক্ষ সমর্থন করে বক্তব্য রাখছেন। এখন পর্যন্ত তিনি চার দিন কথা বলেছেন আদালতে।

গত ১৯ অক্টোবর প্রথম দফা, ২৬ অক্টোবর দ্বিতীয় দফা এবং গত ২ নভেম্বর তৃতীয় দফায় এবং গত বৃহস্পতিবার চতুর্থ সফায় আত্মপক্ষ সমর্থনে বক্তব্য রাখেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া।

সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে তার আগের প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই এই মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন। এতে এতিমদের জন্য বিদেশ থেকে আসা দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়।

২০০৯ সালের ৫ অগাস্ট এই মামলায় অভিযোগপত্র আদালতে জমা পড়ে। এতে খালেদা জিয়া ছাড়াও তার ছেলে তারেক রহমান, সাবেক সংসদ সদস্য কাজী সালিমুল হক কামাল, শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর সাবেক মুখ্যসচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমানকে আসামি করা হয়।

এই মামলা ছাড়াও খালেদা জিয়া, তার ছেলে এবং আরও বেশ কয়েকজন আসামির বিরুদ্ধে চলছে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা। আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে ২০১০ সালের ৮ আগস্ট এই মামলাও করে দুদক। এতে ট্রাস্টের নামে অবৈধভাবে তিন কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা লেনদেনের অভিযোগ আনা হয়। দুটো মামলাই পুরান ঢাকার বিশেষ আদালতে চলছে সমান্তরালে।

এ ছাড়াও খালেদা জিয়া বেশ কিছু দুর্নীতি মামলার আসামি। পাশাপাশি রাষ্ট্রদ্রোহ এবং আন্দোলনের সময় নাশকতার নির্দেশ দেয়ার একাধিক মামলা চলছে বিএনপি নেত্রীর বিরুদ্ধে।

দুর্নী‌তির মামলায় নিজেকে নির্দোষ দাবি করে আদালতে দেয়া বক্তব্যের তথ্য প্রমাণ দেয়ার আহ্বান জা‌নান হানিফ। বলেন, ‘আপনি একা‌ধিকবারের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। আমরা চাই আপ‌নি নির্দোষ হয়ে বেরিয়ে আসুন।’

‘কোন প্রধানমন্ত্রীকে দুর্নীতির দায়ে আদালত দোষী সাব্যস্ত করুক এটা দেশের জন্য মোটেও গৌরবের বিষয় নয়। এটা কখনো দেশের জন্য সস্মান বয়ে আনে না। ’

বৃহস্পতিবার আদালতে খালেদা জিয়া এই মামলায় তাকে শাস্তি দেয়া হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, বহু বিখ্যাত রাজনীতিককেই এভাবে ফাঁসান হয়েছে। এ ক্ষেত্রে তিনি পাকিস্তান আমলে বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধ করার মামলার উদাহরণও দেন।

হানিফ বলেন, ‘এই অপরাধের ম‌ধ্যে আপ‌নি আছেন ব‌লেই আপনার ম‌ধ্যে শঙ্কা আছে। যে কারণেই আপ‌নি বঙ্গবন্ধুর রাজনীতির সঙ্গে আপনাকে তুলনা করছেন। ’

‘স্বাধীন বাংলাদেশ গড়ার জন্য আন্দোলন করায় বঙ্গবন্ধুকে পাকিস্তান সরকার রাষ্ট্রদ্রো‌হের মামলা দিয়ে তাকে কারাগারে নিয়েছিল বারবার। সেই মামলার সা‌থে আপনার দুর্নী‌তির মামলার তুলনা করা অত্যন্ত দুঃখজনক। এটা কখনো মেনে নেয়ার মত নয়।’

খালেদার বিরুদ্ধে চলা এতিমখানা দুর্নীতি মামলা বর্তমান সরকার করেনি জানিয়ে হানিফ বলেন, ‘উনি (বিএনপি চেয়ারপারসন) বললেন, তিনি প্র‌তি‌হিংসার রাজনী‌তি করেন না, এ কারণে শেখ হা‌সিনাকে তিনি ক্ষমা করলেন। কী কারণে, কী কথা বলছেন যে ক্ষমা করলেন? এই মামলা কি শেখ হা‌সিনা আপনাকে দিয়েছেন? এই মামলা কি এই সরকার দিয়েছে? এই মামলা হয়েছে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়। এই মামলার দায়ভার তো আমরা নিতে পা‌রি না।’

বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামী পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ইসমাঈল হোসাইন এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম।


মতামত জানান :

 
 
আরও পড়ুন
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম